যৌতুকের দাবিতে শরীরে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে দেয়ার ১৭ দিন পর মারা গেলেন গৃহবধূ লিমা পারভীন (১৯)। তিনি সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের পাইকাড়া গ্রামের আকরাম সানার স্ত্রী। শনিবার সন্ধ্যায় খুলনা আড়াইশ বেড হাসপাতালে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় কালিগঞ্জ থানায় নারী ও শিশুনির্যাতন আইনে গৃহবধূর স্বামীসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান নিহতের পিতা গফফার গাজী। পুলিশ জানায়, উপজেলার বরেয়া গ্রামের গফফার গাজীর মেয়ে লিমা পারভীনের সঙ্গে প্রায় ২ বছর আগে পারিবারিকভাবে পাশর্^বর্তী পাইকাড়া গ্রামের আকবর সানার ছেলে আকরাম সানার বিয়ে হয়। বিয়ের পর ব্যবসার জন্য আকরাম ও তার পিতা আকবর সানা যৌতুক হিসেবে ৭৫ হাজার টাকা গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে মোটরসাইকেলের দাবিতে স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি বিভিন্ন সময়ে আবারও শারীরিকভাবে তাকে নির্যাতন শুরু করে। এক পর্যায়ে স্বামীর বাড়ি ছেড়ে পিতার বাড়িতে আশ্রয় নেয় লিমা পারভীন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সহায়তায় লিমাকে পুনরায় শ্বশুরবাড়িতে ফিরিয়ে নেয়া হয়। কিছুদিন না যেতেই আবারও শুরু হয় স্বামী, শ^শুর ও শাশুড়ির নির্যাতন। এরই জের ধরে গত ১৭ জানুয়ারি দুপুরে শাশুড়ি জাহানারা পুত্রবধূ লিমা পারভীনকে ঝাড়ু দিয়ে বেদম মারপিট করে। এরপর গৃহবধূর স্বামী আকরাম ও শ্বশুর আকবর সানা তার গায়ে পেট্রোল ঢেলে ম্যাচ ঠুকে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। গৃহবধূর চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে ঘরের দরজার শিকল লাগিয়ে বাড়ি ছেড়ে চলে যান আকরাম, তার পিতা আকবর ও মাতা জাহানারা। এলাকাবাসীর সহায়তায় তাকে প্রথমে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে অবস্থার অবনতি হওয়ায় গৃহবধূকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসার ১৭ দিন পর শনিবার লিমা পারভীনের মৃত্যু হয়।