রাবির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সেই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শাশুড়ির অভিযোগ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের আলোচিত সেই শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক রুখসানা পারভীনের বিরুদ্ধে এবার তার শাশুড়ি নানাভাবে নির্যাতন, ও প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ তুলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে অভিযোগের বিষয়ে রুখসানা পারভীন কিছুই বলতে রাজি হয়নি। তিনি বলেছেন, এটি পারিবারিক বিষয়।
আজ বুধবার বেলা ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বরাবর এ লিখিত অভিযোগ জমা দেন ওই শিক্ষিকার শাশুড়ি রোকেয়া বেগম। এসময় ওই শিক্ষিকার ননদ রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী দিলারা সুলতানা উপস্থিত ছিলেন। অভিযোগপত্রে ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তিনি। লিখিত অভিযোগপত্রে তিনি উল্লেখ করেন, আমার একমাত্র পুত্রের সাথে রুখসানা পারভীনের বিবাহের পর থেকে বিভিন্ন সময়ে এবং বর্তমানেও নানাভাবে আমাকে ও আমার পরিবারের অন্যান্যদের চরমভাবে অপমান-অপদস্ত, অরুচিকর আচরণ এবং নানা ধরনের হুমকি-ধমকি অব্যাহত রেখেছে। এই মহিলা (রুখসানা পারভীন) আমাকে প্রাণনাশের হুমকিসহ ভাষায় অপ্রকাশযোগ্য গালাগালি এবং নানা ধরণের মানসিক নির্যাতন করে আসছে।
পারিবারিক বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কেন জানিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে রুখসানার ননদ দিলারা সুলতানা বলেন, আমরা কার কাছে বিচার চাইব? বিভিন্ন সময়ে বিষয়টি পারিবারিকভাবে সমাধান করতে চেয়েছি। কিন্তু তিনি আমাদের সাথে গণ্ডগোল অব্যাহত রেখেছেন। তাই আমরা নিরুপায় হয়ে তার (রুখসানা) ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের (বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন) কাছে প্রতিকার চাইছি।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, আমি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এটি তাদের পারিবারিক বিষয়। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করবো।
প্রসঙ্গত, গত ২৭ জুলাই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুখসানা পারভীনের বিরুদ্ধে শ্রেণিকক্ষে ও শ্রেণিকক্ষের বাইরে বিভাগের অন্য শিক্ষকদের নামে আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগ তুলে বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক নাসিমা জামানের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন একই বিভাগের ১১ শিক্ষক। এরপর ৩১ জুলাই শিক্ষক রুখসানা পারভীন বিভাগীয় সভাপতি অধ্যাপক নাসিমা জামানের উপস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে ওই ১১ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন। শিক্ষকদের দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি অভিযোগের ভিত্তিতে গত ৩০ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭৫তম সিন্ডিকেট সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক একই বিভাগের অধ্যাপক ড. রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে তার যৌন হয়রানির অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

2018-01-04T10:34:24+00:00January 4th, 2018|শিক্ষা ও সংস্কৃতি|
Advertisment ad adsense adlogger