অবশেষে ঈদের ছবির তালিকা চূড়ান্ত হয়েছে— নবাব, রাজনীতি ও বস টু। একদম শেষ মুহূর্তে সরে গেছে ‘রংবাজ’। এখন জল্পনা-কল্পনা চলছে হল দখলে কোন ছবি এগিয়ে থাকবে? শেষ হাসি কে হাসবে? প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী হল দখলে এগিয়ে আছে ‘নবাব’, এরপর ‘বস টু’ ও ‘রাজনীতি’।

বুকিং এজেন্ট সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন পরিবর্তন ডটকমকে বলছিলেন, “আমার জানামতে ‘নবাব’ ১৩০-১৫০ হলে মুক্তি পাবে। ‘বস টু’ ১০০-১২০ হলে ও ‘রাজনীতি’ ৬০-৮০ হলে মুক্তি পাবে।”

তার মতে, “রংবাজ’ ঈদের মাঠ থেকে সরে যাওয়ায় তাদের বুকিং করা ৪৫টি হল থেকে বেশিরভাগ যাবে ‘রাজনীতি’ ও ‘নবাব’-এর কাছে। ‘বস টু’তে কম যাবে কারণে গত বছরের ঈদে জিতের ‘বাদশা’ ভালো চলায় প্রযোজক নতুন ছবিটির জন্য ভাড়া বেশি চাইছেন। যাদের এত বেশি ভাড়া দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন না তারা বাকি ছবি দুটি নেবেন।”

উল্লেখ্য, ‘বস টু’ নির্মাণকালেই বড় ২৫টির বেশি হলের বুকিং পায় জাজ মাল্টিমিডিয়া। প্রদর্শকদের সাথে চুক্তিকালে উপস্থিত ছিলেন জিৎ।

হল দখলে যে-ই এগিয়ে থাকুক না কেন আনোয়ার হোসেনের মতে, ঈদে তিনটি ছবিই হাড্ডাহাড্ডই লড়াই করবে। তিনি বলছিলেন, “আপাতত দৃষ্টিতে ‘নবাব’ সবার চেয়ে এগিয়ে থাকলেও ‘রাজনীতি’ মাঝখান দিয়ে বেরিয়ে যেতে পারে। অর্থাৎ ভালো ব্যবসা করতে পারে।”

তবে তার সব কথাই অতীত অভিজ্ঞতা নির্ভর এও বললেন। ‘শেষ পর্যন্ত দর্শকরাই শেষ কথা। তারা হিসেবের বাইরে থাকা ছবিকেও সুপারহিট করিয়ে দিতে পারে।’

‘নবাব’ ও ‘রাজনীতি’র প্রধান চরিত্রে আছেন শাকিব খান, নায়িকা যথাক্রমে শুভশ্রী গাঙ্গুলি ও অপু বিশ্বাস। অন্যদিকে, ‘বস টু’তে জিতের বিপরীতে আছেন শুভশ্রী, বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন নুসরাত ফারিয়া। ‘নবাব’ ও ‘বস টু’ যৌথ প্রযোজনার ছবি।