সাম্প্রতিক সময়ে ভাল চলচ্চিত্রের খরা চলছে। এই ধারণাকে অনেকটাই তুড়ি মেরে নতুন নতুন চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা অব্যাহত রয়েছে। সঙ্কট সত্ত্বেও ভাল কিছু নির্মাণের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন অনেকেই। তবে শেষ অবধি সেই চেষ্টা কোথায় গিয়ে দাঁড়াচ্ছে বা ভাল অথবা দর্শক উপযোগী কয়টি চলচ্চিত্রই বা নির্মিত হচ্ছে সে বিষয়ে নিরন্তর জিজ্ঞাসা কিন্তু থেমে নেই। এই অবস্থায় রাজধানীতে আলাদা আলাদাভাবে নতুন আরও একাধিক চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দেয়া হয়। এগুলোর মধ্যে রয়েছে দীপঙ্কর দীপনের ‘ডু অর ডাই’, আরিফুর রহমান আরিফের ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’, উইংস এন্টারটেইনমেন্টের ‘আর’ এবং বেঙ্গলের ’বালিঘর’। দীপঙ্কর দীপনের ‘ডু অর ডাই’ : মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বিমানবাহিনীর দুর্ধর্ষ অভিযান অপারেশন কিলো ফ্লাইটের গল্পে ‘ডু অর ডাই’ নামে চলচ্চিত্র নির্মাণের ঘোষণা দেন ‘ঢাকা এ্যাটাক’ খ্যাত নির্মাতা দীপঙ্কর দীপন। বুধবার সকাল ১১টায় রাজধানীর বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে চলচ্চিত্রটির কনসেপ্ট পোস্টার উন্মোচন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, অপারেশন কিলো ফ্লাইটের বীর নায়কদের অন্যতম ডিএইচসি৩-ওটিটিইআর বিমানের কমান্ডার ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট শামসুল আলমের (বীর উত্তম) চরিত্র অবলম্বনে চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্রকে সাজানো হয়েছে। তার কৈশোর, তারুণ্য ও মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের পাশাপাশি অপারেশন কিলো ফ্লাইটের অন্যান্য সদস্যও থাকবেন চলচ্চিত্রে। শামসুল আলম ছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কিলো ফ্লাইট অপারেশনের অংশগ্রহণকারী ক্যাপ্টেন আকরাম আহমেদ (বীর উত্তম), ফ্লাইং অফিসার বদরুল আলম (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন আব্দুল খালেক (বীর প্রতীক), নূরুল হক (বীর প্রতীক)। অপারেশন কিলো ফ্লাইটের মতো গুরুত্বপূর্ণ অভিযান প্রসঙ্গে তরুণদের জানাতে চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তু হিসেবে এ অভিযানকে নির্বাচন করেন বলে জানান নির্মাতা দীপন। তবে চলচ্চিত্রের শিল্পীদের এখনও চূড়ান্ত করা হয়নি বলে জানান তিনি। বাংলাদেশের বাইরে বলিউডেও অভিনয়শিল্পীদের সম্পৃক্ত করার ইচ্ছা আছে তার। চলতি বছরের নবেম্বরেই চলচ্চিত্রের শূটিং শুরু হবে। শূটিং হবে বাংলাদেশ ও ভারতে। ২০১৯ সালে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাবে বলে জানান তিনি। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করছে থ্রি হুইলার্স লিমিটেড ও মেইন স্কয়ার কর্পোরেশন। আরিফুর রহমান আরিফের ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ : তরুণ নাট্য নির্মাতা আরিফুর জামান আরিফ, অমর কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ নামে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে যাচ্ছেন। সম্প্রতি রাজধানীর রেড অর্কিড রেস্টুরেন্টে এই চলচ্চিত্রের প্রধান অভিনেতা গাজী রাকায়েত এবং অন্যান্য কলাকুশলির পরিচয় দেয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, অভিনেতা ডিএ তায়েব, প্রযোজক তামান্না, নির্মাতা আরিফুর জামান আরিফসহ আরও অনেকে। ইভেন্টস প্লাস ও এম আর ফিল্ম প্রযোজিত ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ চলচ্চিত্রের শূটিংয়ের মাধ্যমে বাদ বাকী শিল্পীদের পরিচয় করিয়ে দেয়া হবে বলে জানা গেছে। উইংস এন্টারটেইনমেন্টের ‘আর’ : রাজধানীর ধানমন্ডির একটি অভিজাত রেস্তরাঁয় সম্প্রতি ‘আর’ চলচ্চিত্রের কলাকুশলীদের পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে জানানো হয় চলচ্চিত্রের অভিনয় করবেন নবাগত অভিনেতা ফারহান খান রিও এবং লিয়ানা লিয়া। এ প্রসঙ্গে রিও বলেন, যারাই মিডিয়ার বিভিন্ন শাখায় কাজ করেন, তা হতে পারে মডেলিং কিংবা নাটকে অভিনয়, তাদের সবারই চূড়ান্ত লক্ষ্য থাকে চলচ্চিত্রে অভিনয়। আমার লক্ষ্যও সেই দিকেই ছিল। আমার প্রত্যাশা এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আমার কাক্সিক্ষত লক্ষ্য পূরণের পাশাপাশি বাংলাদেশী চলচ্চিত্রপ্রেমীরা নতুন একজন এ্যাকশন হিরোকে পর্দায় দেখতে পাবেন। অভিনেত্রী লিয়ানা লিয়া বলেন, চলচ্চিত্রের গল্প আমার খুবই ভাল লেগেছে। আমাকে এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আমার ভক্তপ্রেমীরা আমাকে নতুন রূপে দেখতে পাবেন। ‘আর’ চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে অভিনয় করছেন মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (হিটম্যান)। শীঘ্রই বাংলাদেশের বিভিন্ন মনোরম লোকেশনে করা হবে এর দৃশ্যধারণের কাজ। বেঙ্গলের ‘বালিঘর’: ওপার বাংলার জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক সুচিত্রা ভট্টাচার্য রচিত ‘ঢেউ আসে ঢেউ যায়’ উপন্যাস অবলম্বনে বাংলাদেশের বেঙ্গল ক্রিয়েশনস ও ভারতের নাথিং বিয়ন্ডের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হতে যাচ্ছে নতুন চলচ্চিত্র ‘বালিঘর’। চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করবেন ভারতের জনপ্রিয় নির্মাতা অরিন্দম শীল। দুই পক্ষের যৌথ প্রযোজনা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক সম্প্রতি স্বাক্ষরিত হয়। এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বেঙ্গল ক্রিয়েশনসের প্রযোজক আবুল খায়ের, নির্মাতা মোরশেদুল ইসলাম, লুভা নাহিদ চৌধুরী এবং নাথিং বিয়ন্ডের পক্ষে পরিচালক অরিন্দম শীল। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এ চলচ্চিত্রের অভিনয়শিল্পী আরেফিন শুভ, নুসরাত ইমরোজ তিশা, কাজী নওশাবা আহমেদ, চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালক বিক্রম ঘোষ।
জানা গেছে নির্মিতব্য ‘বালিঘর’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করবেন আবির চ্যাটার্জী, পার্ণো মিত্র, রাহুল ব্যানার্জী, কাজী নওশাবা আহমেদ, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, নুসরাত ইমরোজ তিশা ও আরেফিন শুভ। সঙ্গীত আয়োজনে থাকবেন ভারতের বিক্রম ঘোষ ও বাংলাদেশের চিরকুট ব্যান্ড। চলচ্চিত্রের জন্য গান করবেন পান্থ কানাই। চিত্রধারণ করবেন সৌভিক হালদার। উভয় দেশে যৌথ প্রযোজনার সরকারী অনুমোদন সাপেক্ষে এপ্রিল মাস থেকে দৃশ্যধারণ শুরু হবে। অরিন্দম জানান, কলকাতায় একদিন এবং শান্তি নিকেতনে দুই দিন শুটিং হবে। বাকি ১৬ দিন বাংলাদেশে শূটিং হবে। এছাড়া সম্প্রতি বিএফডিসিতে ‘টিকলী’ নামে আরও একটি চলচ্চিত্রের মহরত অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু জানিয়েছেন ‘অপারেশন জ্যাকপট’ নামে আরও একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হতে যাচ্ছে।