সায়েন্স ফিকশন অ্যাকশন থ্রিলার ছবি ‘মেইজ রানার’-এর কথা ভোলার কথা নয় দর্শকদের। ২০১৪ ও ’১৫ সালে মুক্তি পাওয়া সিরিজের দু’টি ছবিই ভালো সাড়া জাগিয়েছিলো। সবশেষ ছবি ‘মেইজ রানার: দ্য স্কর্চ ট্রায়ালস’ তো বক্স অফিসে দারুণ ঝলক দেখিয়েছে। তিনশ মিলিয়ন ডলার আয় করেছিলো ছবিটি। যার রেশ ধরে এবার আসছে সিরিজের তৃতীয় ছবি ‘মেইজ রানার : দ্য ডেথ কিউর’। এটিই সিরিজের শেষ ছবি। ২৬ জানুয়ারি আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ছবিটি। বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এ ছবি। জেমস ডাসনারের সাড়া জাগানো ট্রিলজি উপন্যাস ‘দ্য মেইজ রানার’ অবলম্বনে নির্মিত এ সিরিজের আগের দুটি সিনেমা দর্শকপ্রিয়তা লাভ করেছে কাহিনি বৈচিত্র্য আর অভিনব নির্মাণশৈলীর কারণে। এবারের ছবিটি আগের ছবিগুলোর চেয়ে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে বলে বিশ্বাস সংশ্লিষ্টদের। সিরিজের তিনটি ছবিরই পরিচালক ওয়েজ বল। অভিনেতা-অভিনেত্রীদের তালিকায়ও খুব বেশি পরিবর্তন আসেনি। ডিলান ও’ব্রেইন, কি হং লি, প্যাট্রিসিয়া ক্লার্কসন, এইড্যান গিলেন, বেরি পিপার, ওয়াল্টন গগিন্সরা রয়েছেন যথারীতি। রয়েছেন ‘মেইজ রানার :দ্য স্কোর্চ ট্রায়ালস’-এ তেরেসা চরিত্রে অভিনয় করা ইংরেজ অভিনেত্রী কায়া স্কোডেলারিও। লাস্যময়ী এ অভিনেত্রী আগের ছবিতে বেশ নজর কেড়েছিলেন দর্শকদের। গত বছর ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান :ডেড ম্যান টেল নো টেইলস’ ছবিতে অভিনয় করা ২৫ বছর বয়সী এ অভিনেত্রী এর আগে ‘ক্লাশ অব দ্য টাইটানস’, ‘উদারিং হেইটস’, ‘নাউ ইজ গুড’, ‘টুয়েন্টি এইট কে’, ‘স্পাইক’, ‘আইল্যান্ড’, ‘দ্য ট্রুথ’, ‘অ্যাবাউট ইম্যানুয়েল’, ‘ওয়াকিং স্টোরিজ’ ছবিগুলোতে অভিনয় করে যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন। তবে ‘মেইজ রানার’ সিরিজের ছবিগুলো তাকে হলিউডে ভিন্ন একটি অবস্থানে প্রতিষ্ঠিত করেছে। এ ছবিগুলোতে প্রধান নারী চরিত্র তেরেসার ভূমিকায় তার দুর্দান্ত অভিনয় দর্শকদের আলোড়িত করার পাশাপাশি সমালোচকদেরও মন জয় করেছে। এবারের ছবিতেও নিজের অভিনয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী তিনি। বিভিন্ন পত্রিকায় দেয়া সাক্ষাৎকারে এ ছবিটি নিয়ে বিশেষ প্রত্যাশার কথা প্রকাশ পেয়েছে। বালক টমাস ও স্কডেলারিও নিজেদের জনপদ থেকে অনেকদূর চলে এসেছে। সবাইকে হারিয়ে তারা এখন অজানা এক বনে। তাদের চোখে-মুখে নেই অতীতের স্মৃতি। শুন্য থেকে শুরু হওয়া জীবনকে আবার নতুন করে চেনা। আত্মবিস্মৃতির গভীর থেকে তবুও প্রশ্ন- আমি কে? বারবার নিজেকে হারিয়েও খুঁজে ফেরে আপনারে। মেইজ রানার টমাস বিভিন্ন ক্লু আবিস্কার করে। সে পুনরুদ্ধার করতে চায় হারানো স্মৃতি। কিছু তরুণের ভুলে যাওয়া স্মৃতি নিয়ে যাত্রা শুরু ‘দ্য মেইজ রানার’ সিরিজের। নতুন ছবির কাহিনী এগিয়েছে আগের ছবির ধারাবাহিকতার পথ ধরেই। তবে এবার দর্শকরা আরো কিছু নতুনত্ব খুঁজে পাবেন। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একটা তীব্র আকর্ষণ ধরে রাখবে বলে মনে করেন পরিচালক।