মাহমুদ হাসান ॥ কুষ্টিয়া সদর থানা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ১৩নং মনোহরদিয়া ইউনিয়নের বার বার নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান তালুকদার। পারিবারিকভাবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক। তিন বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী তালুকদার ও প্রভাষক ধীর আলী তালুকদার এর উত্তরসুরী হিসেবে ১৯৯৮ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে জামাত এর প্রার্থী আমিরুল ইসলামকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ইউনিয়নবাসীর অত্যন্তকাছের জন পরোপকারী ব্যক্তি জনপ্রিয়তায় শীর্ষে থাকায় পূনরায় বিপুল ভোটের ব্যবধানে ২০০৩ সালে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
পরপর দুইবার চেয়ারম্যান থাকাকালে কর্ন্দপদিয়া হতে হাতিভাঙা, রাধানগর হতে চর রাধানগর এবং মনোহরদিয়া বাজার হতে গঙ্গাবরকান্দি মোট ৯কিলোঃ মিটার এলাকায় বিদ্যুতায়নের মাধ্যমে অন্ধকার সমাজে আলো ছড়িয়ে দেন।
চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর আব্দুল হান্নান তালুকদার কখনও বসে থাকেননি। অবহেলিত, উন্নয়নবঞ্চিত মনোহরদিয়া ইউনিয়নের সার্বিক কল্যাণে নিরলসভাবে কাজ করেছেন। ৯ কিলোমিটার পল্লী বিদ্যুতায়ন করেন। সরকারের নামে ব্যক্তিগত সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি করে সেখানে বিরাট বাজার প্রতিষ্ঠা করার মধ্য দিয়ে এলাকার মানুষের নতুন নতুন কর্মসংস্থান, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ প্রত্যন্ত গ্রামে বাজার অর্থনীতির চাকা সচল করেছেন। বর্তমানে মনোহরদিয়া বাজার বলে পরিচিত। যেখানে শত শত মানুষ ব্যবসা-বাণিজ্য করে তাদের রুটি-রুজির জীবিকা নির্বাহ করছে। ইউপির অধিনে প্রতিষ্ঠিত যতগুলো সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে অধিকাংশ তাদের জমির উপর নির্মিত যেমন, মনোহরদিয়া ইউপি ভবন, মনোহরদিয়া বাজার, মসজিদ, পুলিশক্যাম্প, ভুমি অফিস, স্বাস্থ্য কেন্দ্র্র। এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়াতে নিজেদের জায়গার উপর প্রতিষ্ঠা করেছেন কর্ন্দরপদিয়া মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়। চেয়ারম্যান থাকাকালে এলাকার অসহায় মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য ৩টি কমিউনিটি ক্লিনিক ও রাধানগর মাধ্যমিক বিদ্যালয় নিজ জমিসহ এলাকাবাসির থেকে বিনা মুল্যে জায়গা নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেছেন। এছাড়াও ইউনিয়নের প্রায় মসজিদে সরকারী ও ব্যাক্তিগত অনুদান প্রদান করেন, পাকা স্যানিটেশন ব্যবস্থা, এলাকায় একের পর এক টিওবওয়েল স্থাপনের মধ্য দিয়ে বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করেন। এছাড়া বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধীভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, ভিজিএফ, ভিজিডিসহ সকল সরকারী অনুদান সুষ্ঠুভাবে বন্টন করেন ভুক্তভোগীদের মাঝে। বিল খননের মাধ্যমে এলাকায় একদিকে যেমন মাছের চাহিদা পূরণ করেছেন অন্যদিকে বেকার ও কর্মহীনদের নিয়ে সমিতি গঠনের মাধ্যমে তাদের অর্থনৈতিক বুনিয়াদ প্রতিষ্ঠা করেছেন। ইউনিয়নের একটি বড় এলাকা যেখানে অতি বৃষ্টি ও বন্যার পানি নিষ্কাষনের কোন ব্যবস্থা ছিল না। একটু বৃষ্টিতেই পানিবন্দি হয়ে পড়তো মানুষ। চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান তালুকদার নিজ উদ্যোগে কর্ন্দপদিয়া থেকে হাতিভাঙা কুমারনদী পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার, ফকিরপাড়া থেকে ছয়ঘড়িয়া হয়ে কুমারনদী পর্যন্ত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করেন।
হাতিভাঙা হতে মনোহরদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত এইচবিবি পাকা সড়ক নির্মাণ, মনোহরদিয়া হতে গঙ্গাবরকান্দি পর্যন্ত ৩কিলোঃ, মনোহরদিয়াবাজার হতে আশাননগর পর্যন্ত ২ কিলোঃ, কর্ন্দপদিয়া হতে ছয়ঘড়িয়া পর্যন্ত ৫ কিলোঃ, নৃ-সিংহপুর হতে বলরামপুর ব্রীজ পর্যন্ত ৫ কিলোমিটর কাচা রাস্তা পাকা করন করেন, এছাড়া রাধারনগর হতে আশাননগর, রাধানগর হাইস্কুল হতে চরপাড়া হয়ে বলরামপুর, কর্ন্দরপদিয়া হতে হাতিভাঙা মাঠ পর্যন্ত নতুন রাস্তা তৈরি করেন, যার কারনে এলাকার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। কর্ন্দরপদিয়া রাস্তার উপর এবং রাধারনগর ও আশাননগর কুমার নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের মাধ্যমে এলাকার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থায় আধুনিকায়ন করেন। বন্যার্তদের মাঝে খাদ্য ও ত্রান সামগ্রী বিতরণ করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান সকল সময়। এছাড়া ও তিনি ঈদগাহ’র ও গোরস্থান এর উন্নয়নের কাবিখা কাবিটা এবং টিআর অনুদান দিয়েছেন।
৪০ হাজার মানুষের বাস মনোহরদিয়া ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনতার প্রিয় মানুষ জননেতা আব্দুল হান্নান তালুকদার। গত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের ৫ জন প্রার্থী আর বিএনপি’র প্রার্থী ছিলো ১জন। আওয়ামীলীগের ৫ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে পরাজিত হন তিনি। এলাকাবাসী সেই পরাজয়ের ব্যথা আজও ভুলতে পারেনি। তারা এবার হান্নান তালুকদারকে পূণরায় ভোট দিয়ে নৌকা প্রতীকের বিজয় ছিনিয়ে আনতে চায়। এলাকাবাসী জানান, আমরা হান্নান চেয়ারম্যানের কাছে ঋনি। এবার পূণরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত করে সেই ঋন পরিশোধ করতে চাই। কর্ন্দরপদিয়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব হাজী নিয়ামুল হক জানান, আওয়ামীলীগ সরকারের সময় বিএনপি চেয়ারম্যান কোন উন্নয়ন করেনি। তাই এলাকার উন্নয়ন করতে হলে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের বিকল্প নেই। আর এই নৌকার একমাত্র উপযুক্ত প্রার্থী সদর থানা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হান্নান তালুকদার পরপর দুইবার নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান, মনোহরদিয়া ইউনিয়নের উন্নয়নের রুপকার।