সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর চারটি ভুল কাজ থেকে বিরত থাকুন

সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা যেসব কাজ করি তার মধ্যে বেশ কিছুই সঠিক নয়। কিন্তু একটু সতর্কভাবে কাজ করলেই এগুলো ঠিকভাবে করা সম্ভব। আর কাজগুলো ঠিকভাবে করতে পারলে তা দিনটি ভালো শুরু করাও সহজ করবে। এ লেখায় দেওয়া হলো তেমন কিছু ভুল। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।
১. ঘুম থেকে ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই দৌড়াদৌড়ি শুরু
আপনার খুব সকালে উঠেই নানা কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়তে হয়। আর এজন্য ঘুম থেকে ওঠার পর হাতে কোনো সময়ই থাকে না। এ কারণে আপনি কোনোরকমে ঘুম থেকে উঠেই দৌড়াদৌড়ি শুরু করেন। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিষয়টি মোটেই সঠিক নয়। ঘুম থেকে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে যদি আপনি কাজ শুরু করেন তাহলে তা আপনার পিঠের মাংসপেশির ক্ষতি করতে পারে। এছাড়া ঘুম থেকে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে যদি দাঁড়িয়ে কাজ শুরু করেন তাহলে তা আপনার রক্তগুলোকে পায়ের দিকে নিয়ে যাবে, যা দেহের ক্ষতি করবে।
যা করা উচিত
ঘুম থেকে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে কাজ শুরু না করে বরং দেহকে কিছুটা সময় দিতে হবে মানিয়ে নেওয়ার জন্য। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে কাজ শুরু করলে তা আপনার দেহের রক্তগুলোকে সারা দেহে ছড়িয়ে পড়তে সহায়তা করবে। এছাড়া মাংসপেশিগুলো কাজের জন্য প্রস্তুতির একটু সময় পাবে। ফলে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়ানো সম্ভব হবে।
২. নাশতা না খাওয়া
ঘুম থেকে ওঠার পর অনেকেই তেমন একটা ক্ষুধার্ত থাকেন না। ফলে সকালের নাশতা খাওয়ার তেমন তাগিদও থাকে না। এতে সকালের নাশতা বাদ দিয়ে দেন অনেকেই। এছাড়া অনেক দেরি করে নাশতা খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে অনেকের। যদিও এ বিষয়টি মোটেই উচিত নয়। ঘুমের সময় দেহের বিপাক ক্রিয়া ধীর হয়ে যায়। এতে সহজে ক্ষুধা লাগে না। যদিও দেহের স্বাভাবিক উদ্যম ফিরিয়ে আনার জন্য খাবার খাওয়া প্রয়োজন।
যা করা উচিত
সকালের খাবার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সকালে ঠিকভাবে না খেলে রক্তের শর্করার মাত্রা কমে যায়, যা উদ্যমহীনতা তৈরি করে। তাই ঘুম থেকে ওঠার পর দ্রুত দুই থেকে তিন গ্লাস পানি পান করা উচিত। এছাড়া ঘুম থেকে ওঠার ৪৫ মিনিট থেকে এক ঘণ্টার মধ্যে পর্যাপ্ত নাশতা খাওয়া উচিত। এক্ষেত্রে ডিম, ফলমূল, দুধ, বাদাম ইত্যাদি রাখতে পারেন আপনার খাদ্যতালিকায়।
৩. কর্মব্যস্ত সকাল
ঘুম থেকে ওঠার পর সকালেই আমরা যাবতীয় কাজ করতে চাই। এজন্য সন্তানকে স্কুলে পাঠানো, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম চেক করা, অফিসের ইমেইল, মোবাইল ফোন ইত্যাদির চাপে শারীরিক পরিশ্রম, নাশতা ও অন্যান্য কাজগুলো করার কথা অনেকেই ভুলে যাই। যদিও এমনটা না করে বরং শরীরের দিকে কিছুটা মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।
যা করা উচিত
ঘুম থেকে ওঠার পর কাজে ব্যস্ত না হয়ে বরং শরীরের দিকে কিছুটা মনোযোগ দেওয়া উচিত। এক্ষেত্রে কিছুক্ষণ হেঁটে নেওয়া কিংবা শারীরিক অনুশীলন করা, ইয়োগা ও পড়াশোনায় সময় ব্যয় করা উচিত।
৪. স্নুজ বাটনে দক্ষ
আপনি যদি ঘুম থেকে ওঠার জন্য অ্যালার্ম সেট করেন এবং এবং সকালে ঘুম থেকে ওঠার জন্য সেই অ্যালার্ম বাজলেই তার স্নুজ বাটনে চাপ দিয়ে আবার ঘুমাতে থাকেন তাহলে তা কয়েকটি কারণে ক্ষতিকর। কারণ স্নুজ বাটনে চাপ দেওয়ার পর আবার ঘুমালে তা আপনার ভালো ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। দেহের ওপর বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।
যা করা উচিত
ঘুম থেকে ওঠার জন্য অ্যালার্ম বাজলে আপনার আর ঘুমানো উচিত নয়। এক্ষেত্রে বিছানায় বসে পড়া কিংবা বিছানা থেকে ধীরে ধীরে উঠে পড়াই উত্তম। এরপর হালকা এক্সারসাইজ কিংবা স্ট্রেচিং ও গভীর শ্বাস নেওয়ার মাধ্যমে দিনের কাজ শুরু করুন।

2019-01-13T11:24:28+00:00January 13th, 2019|স্বাস্থ্য|
Advertisment ad adsense adlogger