পর্তুগালে দাবানলে ৬২ জনের মৃত্যু

পর্তুগালের মধ্যাঞ্চলে ভয়াবহ দাবানল অন্তত ৬২টি প্রাণ কেড়ে নিয়েছে, যাদের বেশির ভাগই সড়কে গাড়িতে থাকা অবস্থায় পুড়ে মারা যায় বলে গতকাল রোববার সরকারিভাবে জানানো হয়েছে। দাবানলে আহত হয়েছে অগ্নিনির্বাপণ বাহিনীর কয়েকজন সদস্যসহ অন্তত ৫৯ জন।

দাবানলে মৃতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনিও কোস্তা। তিনি বলেছেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত, আমরা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যেসব দাবানল দেখেছি, এর মধ্যে এবারের দাবানলকেই সবচেয়ে প্রাণঘাতী বলে মনে হচ্ছে।’ শুষ্ক ঝড়ে এই দাবানলের সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

শনিবার পর্তুগালের কয়েকটি অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রচণ্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। সেসব অঞ্চলে তাপমাত্রা ছিল ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে। ওই দিন বিকেলে পেদরোগো গ্রানজি পৌরসভায় দাবানলের সৃষ্টি হয় এবং দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ে। ওই দাবানলের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক শ অগ্নিনির্বাপণকর্মী ও ১৬০টি যানবাহন পাঠানো হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ গোমস বলেন, দাবানলে মৃত্যু হওয়া ৩০ জনের লাশ গাড়িতে পাওয়া যায়। আরও ১৭ জনের লাশ পাওয়া যায় অন্যান্য যানবাহনে।

রোববার দেশটির গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়, দাবানলের আগুন তখন পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণে আনার মতো অবস্থায় ছিল না।

Advertisment ad adsense adlogger