মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকারের শাটডাউনের পর বিরোধী ডেমোক্র্যাটদের ‘পরমাণু বিকল্প’ দিয়ে হুমকি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সিনেটরদের উচিত সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় নতুন ব্যয় বরাদ্দ বিলে অনুমোদন দেয়া। বিবিসি ও ওয়েবসাইট। সিনেট নতুন ফেডারেল ব্যয় বিল পাস করানোর উদ্যোগ ব্যর্থ হওয়ার পর শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শাটডাউন কার্যকর হয়েছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার মতো জরুরী বিভাগগুলো ছাড়া সব সরকারী কাজকর্ম বন্ধ আছে। অচলাবস্থা না কাটা পর্যন্ত শাটডাউন অব্যাহত থাকবে। এর ফলে হাজার হাজার ফেডারেল কর্মী তাদের মজুরি থেকে বঞ্চিত হবেন। ডেমোক্র্যাটরা চাচ্ছেন ‘ড্রিমার্স’ নামে পরিচিত যেসব অভিবাসী শৈশবে তাদের অনিবন্ধিত বাবা-মায়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছে তাদের বিষয়টি বিলের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রাখতে। কিন্তু ট্রাম্পসহ রিপাবলিকানরা তাদের এই উদ্যোগের বিরোধিতা করেছেন। তাই ডেমোক্র্যাটরাও ব্যয় বিলে সমর্থন দেয়নি। তার ফলে দেখা দিয়েছে এই অচলাবস্থা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট রবিবার বলেন, ‘আমাদের সেনাবাহিনী, সীমান্ত, নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রিপাবলিকানরা প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। ডেমোক্র্যাটরা চায় কোন রকম যাচাই বাছাই ছাড়াই অভিবাসীরা দেশে ঢুকে পড়ুক। অচলাবস্থা অব্যাহত থাকলে রিপাবলিকানদের দীর্ঘমেয়াদী বাজেটের জন্য ৫১ শতাংশের বিধিতে যাওয়া উচিত (পরমাণু বিকল্প)’। তথাকথিত পরমাণু বিকল্প সিনেটে ভোটাভুটির একটি নিয়ম। সংখ্যালঘুদের পাশ কাটিয়ে সংখ্যাগুরুরা বিল পাস করানোর জন্য এটি করে থাকে। সিনেটের সংখ্যাগুরু দলের সাবেক প্রধান হ্যারি রিড (ডেমোক্র্যাট) ২০১৩ সালে নিয়মটি প্রথম প্রয়োগ করেছিলেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার স্টাফ নিয়োগ অনুমোদন করতে রিপাবলিকানরা অস্বীকৃতি জানানোর পর তিনি এই পদ্ধতি প্রয়োগ করেন। এতে ভোট গণনার সর্বনি¤œ সীমা ৬০ থেকে ৫১ তে নামিয়ে আনা হয়। সুপ্রীমকোর্টের নি¤œ মর্যাদার বিচারক এবং নির্বাহী নিয়োগ অনুমোদন করিয়ে নিতে তখন এটি প্রয়োগ করা হয়। গত বছর রিপাবলিকানরা এই নিয়মের আওতা আরও বাড়িয়ে সুপ্রীমকোর্ট সম্প্রসারিত করে। উদ্দেশ্য ছিল এ্যাসোসিয়েট জাস্টিস হিসেবে ট্রাম্পের দেয়া নেইল গরসাচের নিয়োগ অনুমোদন করানো। তবে সিনেটে সংখ্যগুরু দলের প্রধান মিচ ম্যাককোনেল ট্রাম্পের এ উদ্যোগের বিরোধিতা করেছেন। ব্যয় বিল পাস করানোর জন্য সর্বশেষ উদ্যোগ ব্যর্থ হওয়ার পর তিনি বলেন, ‘আমেরিকার জনগণ এ কথা বুঝতে পারছে না যে সিনেটের ডেমোক্র্যাট নেতা কেন অবৈধ অভিবাসীদের জন্য অনুরাগ দেখিয়ে সরকারী কাজকর্ম বন্ধ করে দেয়ার ঝুঁকি নিচ্ছেন।’ ডেফার্ড এ্যাকশন চাইল্ডহুড এ্যারাইভাল কর্মসূচী (ডাকা প্রোগ্রাম) প্রায় ৭ লাখ ড্রিমার্স এ সুবিধা ভোগ করে আসছিল। ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর তার পূর্বসূরীর গৃহীত এ পদক্ষেপ বাতিল করেছেন। তিনি ড্রিমার্সদের অন্যান্য অভিবাসীরা যে আইনের আওতায় আছে সেই একই আইনের আওতায় আনতে চান বলে জানিয়েছে। এদিকে শাটডাউনের মধ্য দিয়েই যুক্তরাষ্ট্রে কর্মসপ্তাহ শুরু হয়েছে। ফেডারেল সরকারী কার্যক্রমে অচলাবস্থা শুরু হওয়ায় কেন্দ্রীয় সরকারের শত শত কর্মী কাজে যোগ দিতে পারছেন না। রবিবার রাতে সমঝোতায় পৌঁছানোর একটি উদ্যোগ ব্যর্থ হয়। ফেডারেল সরকারের কর্মীরা অচলাবস্থা নিরসন না হওয়া পর্যন্ত বিনা বেতনে ছুটিতে থাকবেন। সোমবার গৃহায়ণ, পরিবেশ, শিক্ষা ও বাণিজ্য বিভাগের অধিকাংশ কর্মীকে বাসায়ই থাকতে হবে। পাশাপাশি অর্থ, স্বাস্থ্য, প্রতিরক্ষা ও পরিবহন বিভাগের অর্ধেক কর্মী কাজে যোগ দিতে পারবেন না। জাতীয় নিরাপত্তা, ডাক বিভাগ, এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল, হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগী, বহির্বিভাগের রোগীদের ওষুধ, দুর্যোগ সহায়তা, কারাগার, কর ও বিদ্যুত সরবরাহের মতো জরুরী সেবাগুলো অব্যাহত থাকে।