৩৬ বছর পর আবার দৃশ্যমান হচ্ছে সুপার ব্লাড ব্লু মুন। এটি একটি বিরল প্রাকৃতিক ঘটনা। বুধবার উত্তর আমেরিকা, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, রাশিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার ৩১ টি জায়গা থেকে এই চাঁদ দেখা যাবে। আকারে বড়, ব্লু মুন এবং চন্দ্রগ্রহণ তিনটি ঘটনা এবার একসঙ্গে ঘটবে। এএফপি।
স্কাই এ্যান্ড টেলিস্কোপ সাময়িকীর সিনিয়র এডিটর কেলি বিটি বলছেন, তিনটি মহাজাগতিক ঘটনা এবার একসঙ্গে ঘটছে। প্রথমত এটি হতে চলেছে ব্লু মুন বা একটি মাসে দ্বিতীয় পূর্ণিমা। সাধারণত দুই বছর আট মাস পর এরকম হয়ে থাকে। দ্বিতীয়ত এটি হবে সুপার মুন। চাঁদের কক্ষপথে পৃথিবীর সঙ্গে সবচেয়ে কম দূরত্বে চলে আসবে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ভাষায় এই বিন্দুটির নাম ‘পেরিগি’। এখানে চাঁদকে স্বাভাবিক অবস্থা থেকে ১৪ গুণ বড় এবং ৩০ গুণ উজ্জ্বল দেখাবে। এছাড়া চন্দ্রগ্রহণ বা পৃথিবীর ছায়া চাঁদের ওপর পড়বে। গ্রহণ চলাকালে চাঁদের রং ক্রমাম্বয়ে সাদা থেকে কমলা বা লাল রং ধারণ করবে। ওই সাময়িকীরই অ্যালান ম্যাকরবার্ট বলেন, আপনি যে লাল রং দেখতে পাবেন সেটি আসলে সূর্যরশ্মি, পৃথিবীর বায়ুম-লে প্রতিফলিত হয়ে সেটি গিয়ে চাঁদের ওপর পড়ে। তবে এই রশ্মির প্রতিফলন কেবল এই দিনই নয়, বরং প্রতিটি দিন সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের সময় হয়ে থাকে বলে তিনি জানান। পুরো চন্দ্রগ্রহণ এক ঘণ্টা ১৬ মিনিট স্থায়ী হবে এবং এটি আমেরিকার পশ্চিমাঞ্চল ও কানাডা থেকে দেখা যাবে। মধ্যপ্রাচ্য, রাশিয়ার পূর্বাঞ্চল, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড থেকেও সন্ধ্যার সময় এটি দেখা যাবে। সূর্য গ্রহণের সময যেমন চোখের সতর্কতা অবলম্বন প্রয়োজন হয়, চন্দ্র গ্রহণের সময় তা দরকার হবে না। আমরা অনেক সুপার মুন ও চন্দ্রগ্রহণ দেখেছি। তবে এই ঘটনা যদি ব্লু মুনের সহযোগে সংঘটিত হয় তবে এটি এক ব্যতিক্রমী ঘটনা। এমব্রি রিডল এ্যারন্টিক্যাল ইউনিভার্সিটির ফ্লোরিডা ক্যাম্পাসের সহকারী অধ্যাপক জেসন অফডেনবার্গ একথা বলেন। তিনি বলেন, তিনটি ঘটনা একসঙ্গে ঘটা অস্বাভাবিক। এর আগে ১৯৮২ সালের ৩০ ডিসেম্বর এমন হয়েছিল। ইউরোপ, আফ্রিকা ও এশিয়ার পশ্চিমাঞ্চলজুড়ে ওই চাঁদ দেখা গিয়েছিল। তখন একবার কক্ষপথের পেরিগিতে চাঁদ এসেছিল। ১৮৪৪ সালের ৩১ মে এবং ১৮৬৬ সালের ৩১ মার্চ উত্তর আমেরিকায় সর্বশেষ এরকম দৃশ্য দেখা যায়। তবে সুপার মুন ও চন্দ্রগ্রহণ তুলনামূলকভাবে অল্প বিরতিতে ঘটে থাকে। ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে সর্বশেষ এটি হয়েছিল। চন্দ্র গ্রহণ বছরে অন্তত দুবার এবং সুপারমুন বছরে ছয়বার পর্যন্ত হতে পারে। আগামী বছর ২১ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে ফের চন্দ্রগ্রহণ ও সুপারমুন দেখা যাবে।