গোপন তথ্য ফাঁস হচ্ছে ফিটনেস ট্র্যাকিং এ্যাপে

ইরাক ও সিরিয়ার মতো যুদ্ধ ক্ষেত্রগুলো যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র দেশগুলোর সৈন্যদের গতিবিধি শনাক্ত করা যায় এরকম একটি মোবাইল এ্যাপের চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। এ্যাপটির নাম স্ট্রাভা ল্যাবস। এর মাধ্যমে গোপন ঘাঁটিতে সৈন্যদের অনুশীলনের পুরো মানচিত্র তৈরি করা সম্ভব। এর ফলে সৈন্য বা ঘাঁটিগুলোর নিরাপত্তা ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এএফপি। স্ট্রাভা ল্যাব তাদের ফিটনেস ট্র্যাকিং এ্যাপে সারা বিশ্বে তাদের প্রযুক্তি ব্যবহারকারীদের চলাচলের সুবিধার জন্য এই ম্যাপ তৈরি করেছে। জাভা প্রযুক্তি ব্যবহারকারীরা যাতে বিশ্বের গোলযোগপূর্ণ এলাকা যেখানে সামরিক সংঘাত বা তীব্রতা আছে সেগুলো পরিহার করতে পারে সে উদ্দেশ্যেই মূলতঃ এই ম্যাপ তৈরি করা হয়েছে। সেনা চলাচলের এসব রাস্তা যে একইভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে তা নয়। বরং কোন কোন ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রমও দৃষ্টিগোচর হয়েছে। যেমন, ইরাকের বেশ কিছু এলাকা, অন্ধকারবেষ্টিত আবার ইসলামিক স্টেট জঙ্গীদের বিরুদ্ধে পরিচালিত মার্কিন ও জোট বাহিনীর অভিযানের গতিপথ বিস্তারিতভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসবের মধ্যে রয়েছে বাগদাদের উত্তরের তাজি এলাকা, মসুলের দক্ষিণে কাইয়ারাহ, তিকরিতের কাছে স্পেইশের এবং আনবার প্রদেশের আল আসাদ অঞ্চল। এই ম্যাপে ইরাকের উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলের ছোট ছোট স্থাপনা যা সকলের কাছে ব্যাপকভাবে পরিচিত নয় এমন সামরিক ঘাঁটির অবস্থানও চিহ্নিত করা হয়েছে। মার্কিন ও জোটভুক্ত সেনাদের জন্য সবচেয়ে বিপজ্জনক যে দিকটি এই ম্যাপের মাধ্যমে উন্মোচিত হয়েছে তা হচ্ছে সৈন্য চলাচলের এই গতিপথের দৈর্ঘ, প্রস্থ ও ভ্রমণকালে চলাচল উপযোগী কিনা তার বিস্তারিত তথ্য এই এ্যাপে উল্লেখ করা হয়েছে। স্ট্রাভা ল্যাবের প্রণীত মানচিত্রে শুধু ইরাক নয়, আফগানিস্তান ও আফ্রিকার নাইজারে সেনা ঘাঁটির অবস্থানও চিহ্নিত করা আছে। আফগানিস্তানে তালেবান মোকাবেলায় মার্কিন বাহিনী সর্বশক্তি মোতায়েন করেছে। সে দেশের দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের বেশ কয়েকটি স্থানে মার্কিন ও জোটভুক্ত সৈন্যরা প্রতিদিনই বিদ্রোহ দমনে অভিযান পরিচালনা করছে। তারপরও খোদ রাজধানী শহর কাবুল ও আশপাশের সুরক্ষিত স্থানে তালেবানরা প্রায় প্রতিদিনই হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া সিরিয়ার উত্তর পশ্চিমাঞ্চলের কামিশলিতে মার্কিন জোটের মদদপুষ্ট কুর্দী বাহিনীর। গতিবিধি সম্বলিত তথ্যচিত্র এই স্ট্রাভা এ্যাপে পরিস্ফূটিত হয়েছে। স্ট্রাভা ম্যাপে অঙ্কিত সেনা ঘাঁটি ও সামরিক বাহিনীর গতিপথ চিহ্নিত হওয়ায় নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের মধ্যে দারুণ উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার জন্ম দিয়েছে। কারণ, সেনাঘাঁটিগুলো সুনির্দিষ্ট অবস্থান থেকে সরিয়ে নেয়া বা তা গোপন করে রাখা সম্ভব নয়।তাই এখানে মোতায়েনকৃত সেনাবাহিনীর আসা যাওয়া দারুণ হুমকির সম্মুখীন হতে পারে।

 

2018-01-30T07:17:29+00:00January 30th, 2018|আন্তর্জাতিক|
Advertisment ad adsense adlogger