স্টাফ রিপোর্টার : শনিবার বেলা ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেলার ইবি থানা অন্তর্গত দুর্গাপুর ইউপি’র গান্দি গ্রামে মৃত শেখ মেহের আলী এর ছেলে রিয়াজ উদ্দীন (৫৫) নামে এক কৃষক বসতবাড়ী সংলগ্ন সরকার হতে বন্দোবস্ত হিসাবে নেওয়া জমিতে ধান লাগানোর সময় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়েছে। সূত্রমতে জানা গেছে, মৃত শেখ মেহের আলী গান্দি মৌজায় ২১০নং খতিয়ানে ৫৬৪, ৬০৫, ৫৮৭, ৬১৫, ৬০৮, ৬১০, ৬১১, ৬২৬ দাগে অনুমান ৬ বিঘা জমি সরকার কর্তৃক লিজ প্রাপ্ত হন। ১৯৬২ ও ১৯৭০ সালের রেকর্ড অনুযায়ী উত্তরাধীকার সূত্রে তার ছেলে রিয়াজ উদ্দিন (৫৫) বসবাস ও চাষাবাদ করে আসছে। একই এলাকায় মৃত রফি উদ্দিন এর ছেলে মোক্তার হোসেন (৫৫) জাল দলিল তৈরী করে জমি দখলের চেষ্টা করে আসছে। আদালতের রায়ে ডিসিআর প্রাপ্ত দরীদ্র কৃষক রিজাজ উদ্দীন কে ভূমিচূত্য করতে মোক্তার হোসেন হীন ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে বলে জানা গেছে। সরকারী বিধিবিধান মেনে রিফাজউদ্দিন জমি ভোগ দখল করে আসলেও ঘটনার দিন বেলা অনুমান ১০টায় মোক্তার হোসেনের নেতৃত্বে ১০/১৫ জন লোক দেশীয় অন্ত্র নিয়ে রিফাজ উদ্দীনের উপর হামলা করে। রিফাজ উদ্দীনকে উদ্ধার করতে আসলে ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী শিরিন সহ পিং- শহিদুল ইসলাম, শিউলি, যোহরা, হানিফা, পিং- আব্দুর রহিম, ফিরোজ, হাসু, বাবু, মিজান, নাসির, লালু, ইংরাজ, হুমায়ন, আব্দুল আলিম, জহুরুল, আয়ুব আলী, আজাদ, আলতাব, আতিয়ার গুরুতর আহত হয়। আহতরা কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
স্থানীয়রা জানার, মোক্তার হোসেন একই মৌজায় ৭ একর সরকারী জমি দখল করার উদ্দেশ্যে একই এলাকায় একাধিক কৃষকের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। গ্রাম্য শালিশের সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে অশিক্ষিত কৃষকদের ঠকানোর উদ্দেশ্যে ফন্দি এটে চলেছেন বলে জানা যায়। উক্ত জমিগুলো কিনেছেন বলে জানান। তবে কার কাছ থেকে কিনেছেন, কবে বন্দোবস্ত পেয়েছেন তা স্পষ্ট করে বলেননি মোক্তার হোসেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে রিয়াজ উদ্দিন ও তার পরিবারকে হুমকি দিয়ে আসছেন। ১৯৯২ সালে মোক্তার হোসেনের নির্দেশে সন্ত্রাসী বশির ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা রিয়াজ উদ্দীনে হাত, পা ভেঙ্গে দিয়েছিল। সূত্রমতে জানা যায় আকবর হত্যার আসামী ছিলেন মুক্তার হোসেন। তবে মোক্তার হোসেন সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন আইনী লড়াইয়ের মাধ্যমে প্রাপ্য জমি তিনি দখল নিতে চান। প্রসঙ্গত ভুক্তভুগি রিয়াজ উদ্দীন জানান ভিপি কেস নং- ৬২০-১৬৬/৬৭ এর গত ২৬/০৬/২০১৬ তারিখে এক রায়ে ডিসিআর প্রাপ্ত হন। জমি ফিরে পেতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।