চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান বলেছেন, ‘হরিজন সম্প্রদায় এখন আর পিছিয়ে নেই। তারা এ দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। সে কারণে তাদের অবমূল্যায়নের সুযোগ নেই।’রবিবার দুপুর ২টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সন্মেলন ‘কক্ষে সকলের জন্য মানবাধিকার : প্রসঙ্গ অস্পৃশ্যতা বিষয়ক’ এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।জাতীয় মানবাধিকার কমিশন আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান, হরিজন মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব রম্ভুনাথ বাঁশফোর।ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘সাত খুনের আসামিকে যদি মর্যদা দেওয়া হয়। তাহলে হরিজন সম্প্রদায়কে কেন মর্যাদা দেওয়া হবে না। হরিজনদের অধিকার ক্ষুণ্ন করা হবে কেন?’তিনি বলেন, ‘আইন দিয়ে মানুষকে ভালবাসতে বাধ্য করা যায় না। শুধু হরিজন নয়, আমাদের মানুষকে ভালবাসতে শিখতে হবে। ধর্মে কোথাও নেই মানুষে মানুষে ভেদাভেদের কথা।’মিজানুর রহমান বলেন, ‘হরিজন সম্প্রদায়ের মানুষকে হোটেলে ভাত খেতে, চা’র দোকানে চা পান করতে, চুল কাটার দোকানে চুল কাটতে দেওয়া হয় না। রাষ্ট্র এগুলো মেনে নেবে না। এ রাষ্ট্রের সকলের জন্যই সংবিধান। সংবিধানে সকল নাগরিকের অধিকার সংরক্ষণের নির্দেশনা দেওয়া আছে।’সেমিনারে বক্তারা বলেন, সংবিধানে সকল নাগরিকের সমান অধিকার নিশ্চিত করা হলেও হরিজন সম্প্রদায় তা থেকে বঞ্চিত।’তারা এ বৈষম্য দূরীকরণের দাবি জানান বক্তারা।