দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে আ’লীগের কমিটির সদস্যদের সমর্থন পেতে ভোট কেনাবেঁচায় মাঠে নামেছে একটি চক্র

বিশেষ প্রতিনিধি
আসন্ন ৫ম উপজেলা পরিষদের নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই অস্থিরতা বাড়ছে দৌলতপুরে। বিশেষ করে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের নির্বাহী পরিষদসহ প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সমন্বয়ে বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৩জন করে চেয়ারম্যান প্রার্থী কেন্দ্রে প্রেরণের যে সিদ্ধান্ত হয়েছে তা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের মূল ধারার আওয়ামীলীগের সাথে জড়িত নয়, মুল দলের সদস্য নয় এমনকি বিতর্কিত ব্যক্তিরা দলীয় সমর্থন পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। আগামী ২৭ জানুয়ারি দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা। সেখানে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, স্থানীয় সংসদ সদস্য আ.কা.ম. সরোয়ার জাহান বাদশাসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত থাকবেন। তৃনমুলের সকলের কথা এবং সমর্থন অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিবেন নেতৃবৃন্দ।
তৃনমুল নেতাকর্মীদের অর্থের বিনিময়ে ঐ সভায় সমর্থন পাওয়ার জন্য বিতর্কিত ও জনসমর্থনহীন ৩ প্রার্থী দলীয় সদস্যদের বাড়িতে বাড়িতে ধর্না দিয়ে চলেছে। তারা সদস্যদের নানা প্রলোভন এবং ভয়-ভীতিও প্রদর্শন করছে বলে জানা গেছে। আওয়ামীলীগের তৃনমুলের ত্যাগী এবং পরীক্ষিত প্রবীণ নেতারা বলেন, সাময়িক টাকার বিনিময়ে যদি ঐ সকল বিতর্কিত ব্যক্তিদের নাম প্রার্থী হিসেবে যায় তাহলে প্রকৃত প্রার্থী যারা দীর্ঘদিন ধরে শ্রম, মেধা এবং অর্থ দিয়ে দলকে সুসংগঠিত করেছে তারা বঞ্চিত হবে। যা দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগকে দীর্ঘমেয়াদী মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৃনমুলে সৎ, শিক্ষিত এবং ত্যাগী ও পরীক্ষিতদের মুল্যায়নের যে ঘোষণা দিয়েছেন সেই উদ্দেশ্য মারাত্মকভাবে ব্যহত হবে। দলের মধ্যে কালো টাকা আর অবৈধ পেশীশক্তির বিনিময়ে যারা সংগঠনের সদস্যদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে তাদের প্রত্যাখ্যান করে প্রকৃত জনসমর্থন আছে, দীর্ঘদিন যারা মাঠে আছেন তাদের মনোনয়নের জন্য তালিকাভুক্ত করার দাবী উঠেছে সর্বস্তরের নেতাকর্মীর। যাদের পক্ষে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট আছে ভাল প্রার্থী হিসেবে তাদের বিবেচনায় আনা উচিত বলে দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা মনে করেন।

2019-01-25T22:17:11+00:00January 25th, 2019|রাজনীতি|
Advertisment ad adsense adlogger