কুম্বলেবিরোধীদের প্রতি ক্ষোভ গাভাস্কারের

সুনীল গাভাস্কার একটা ব্যাপার ভেবে পাচ্ছেন না। ভারতীয় ক্রিকেট দলের যে খেলোয়াড়েরা কোচের পদে অনিল কুম্বলেকে দেখতে চাননি, তাঁরা আসলে কী চান? এমন একজন কোচ, যিনি অনুশীলনের কথা না বলে খেলোয়াড়দের বলবেন শপিংয়ে যেতে? তাঁর দুঃখ কুম্বলের মতো কঠোর পরিশ্রমে বিশ্বাসী একজন কোচ ভারতীয় দলের দায়িত্বে থাকতে পারলেন না বলে। ভারতীয় ক্রিকেট কিংবদন্তি মনে করেন, যেসব খেলোয়াড়ের কারণে কুম্বলেকে পদত্যাগ করতে হয়েছে, তাঁদের দল থেকেই বাদ দেওয়া উচিত।

বেশ ক্ষোভের সঙ্গেই কথাগুলো বলেছেন গাভাস্কার, ‘তাহলে তারা নরম কাউকেই চায়। এমন একজনকে তারা চায়, যে বলবে, “ঠিক আছে, আজকে অনুশীলন করতে হবে না। তোমরা হয়তো একটু ক্লান্ত। ঠিক আছে আজ তোমাদের ছুটি। দল বেঁধে শপিং করে আসতে পারো।” খেলোয়াড়েরা এমনই চাইছে। অনিল কুম্বলের মতো একজন কোচ, যিনি পরিশ্রম করতে ও করাতে পছন্দ করেন, গত এক বছরে যিনি দলকে ভালো করতে সহায়তা করেছেন, আপনি চাইবেন, এমন কেউই দলের কোচ হিসেবে থাকুক। কিন্তু যেসব খেলোয়াড়ে তাঁর বিরুদ্ধে নালিশ দিয়েছে, তাদের দল থেকে বাদই দেওয়া উচিত।’

কুম্বলেকে নিয়ে অধিনায়ক বিরাট কোহলির আপত্তি ছিল। আপত্তি ছিল দলের অনেক সিনিয়র খেলোয়াড়েরই। গাভাস্কারের বক্তব্য অনুযায়ী, দল থেকে তো সবচেয়ে আগে বাদ পড়েন কোহলি। তবে ভারতের সাবেক ওপেনার ব্যাপারটি এড়িয়ে গিয়ে বলেছেন, ‘আমি জানি না কোহলির সঙ্গে কুম্বলের কী হয়েছে! তবে কুম্বলের পদত্যাগ ভারতীয় ক্রিকেটের একটা বাজে উদাহরণ।’

অধিনায়কের সঙ্গে কোচের মতপার্থক্যের অবশ্য কোনো সমস্যা দেখেন না গাভাস্কার, ‘গত এক বছরে আমি কুম্বলের কাজে কোনো সমস্যা দেখিনি। এই সময় ভারত সম্ভব সবকিছুই জিতেছে। দলে মতের অমিল থাকতেই পারে। কিন্তু যতক্ষণ দল ভালো করছে, ততক্ষণ কোনো সমস্যা আমি দেখি না।’

কুম্বলের সরে যাওয়াতে দুঃখই পেয়েছেন গাভাস্কার, ‘অনিলের নিশ্চয়ই সরে দাঁড়ানোর কারণ ছিল। আমি মনে করেছিলাম, কুম্বলে বোধ হয় থেকে যাবেন। যেখানে সিএসি তাঁর প্রতি আস্থা দেখিয়েছে, সেখানে তাঁর কোচের পদে থেকে যাওয়াই উচিত ছিল। আশা করি, তিনি আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরবেন। এই প্রথম আমি দেখলাম, অনিল কুম্বলের মতো একজন লড়াকু সৈনিক রণে ভঙ্গ দিচ্ছেন।’

2017-06-21T12:46:57+00:00June 21st, 2017|খেলাধুলা|
Advertisment ad adsense adlogger