বিশ্বের অন্যতম খ্যাতনামা পদার্থবিজ্ঞানী স্টিফেন হকিংসের মৃত্যু হয়েছে। ১৯৮৫ সালেই মৃত্যু হয় এই পদার্থবিজ্ঞানীর। অন্তত এরকমটাই দাবি করছে কিছু ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদরা। কিন্তু এটা কী করে সম্ভব?সোমবারই বহু সম্মানে সম্মানিত এই অধ্যাপক তার ৭৬তম জন্মদিন পালন করলেন। আর ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদরা নাকি দাবি করছেন, হকিংয়ের মৃত্যু হয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠছে, যদি সত্যিই হকিংয়ের মৃত্যু হয় তবে এখন যাকে আমরা দেখছি তিনি কে? ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদদের মতে, এখন যিনি স্টিফেন হকিংয়ের জায়গায় রয়েছেন তিনি আসল বিজ্ঞানী নন। হকিংয়ের মতই দেখতে একজন। যিনি হকিংয়ের জায়গায় কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন সেন্টার ফর থিওরিটিকাল কসমোলজিতে ডিরেক্টরের পদে রয়েছেন। এই খবরটি প্রকাশ্যে আসার পরই মানুষ বিশ্বাস করতে শুরু করে দিয়েছেন যে আসল স্টিফেন হকিং দশক আগেই মারা গেছেন। রাজনীতিবিদ ও বিজ্ঞানীরা বিষয়টা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য স্টিফেনের মত দেখতে অন্য একজনকে বসিয়ে রেখেছেন আসল বিজ্ঞানীর জায়গায়। ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদদের মতে, আসল স্টিফেন হকিংয়ের মতই পদার্থবিজ্ঞানে দক্ষ। যে স্টিফেন হকিং ট্রাম্প-স্কটিশ ইন্ডিপেনডেন্স-ব্রেক্সিটকে নিয়ে কথা বলা পছন্দ করতেন না, তিনি হঠাৎ করে রাজনীতি নিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছেন। আর এটাই খটকা লাগছে তদন্তকারীদের কাছে। ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদদের মতে, স্টিফেন হকিং ১৯৮৫ সালেই মারা যান। সেই সময় তিনি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়েন। তখনই চিকিৎসকরা তার লাইফ সাপোর্ট সিস্টেম বন্ধ করে দেন এবং হকিং মারা যান। যদিও এই তথ্যটির ওপর ক্রমাগত কাজ করে চলেছেন ষড়যন্ত্র তত্ত্ববিদরা। বর্তমান বিজ্ঞানীর ফটো, গলার স্বরও পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।