Home2018-11-19T15:09:49+00:00
এইমাত্র পাওয়া
Homeঘুমানোর সময় স্বপ্ন না দেখলে কিন্তু বিপদ!কঠিন সব কাজ সহজেই শিখুন ২০ সাইট থেকেঢাকার কাছা-কাছি মোট ২১ টি রিসোর্টের তথ্য শেয়ার করে সংগ্রহে রাখুনআজ তারা বোবা বধির ও অন্ধ হয়ে গেছেন: এরদোগানচাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে মূল লড়াই হবে নৌকা-ধানের শীষেনির্বাচনী প্রচারণায় গোপালগঞ্জের পথে প্রধানমন্ত্রীজাতিসংঘে শেখ হাসিনার ‘ডেল্টা প্লান ২১০০’ তুলে ধরল বাংলাদেশগ্রেপ্তার বিএনপি নেতা দুলুটেকনোক্র্যাটদের ৪ দফতর বণ্টন করলেন শেখ হাসিনাপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী সফরসূচিকমিশনার-ডিসিদের রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্টপ্রেমে পড়ার যত অদ্ভুত কারণব্যথার সঙ্গে পাঁচটি লক্ষণকে কখনোই অবজ্ঞা নয়বন্ধাত্বের নেপথ্যে ভুল জীবনযাপনজন্ম নিয়ন্ত্রণের ওষুধে এইডস-র ঝুঁকি বাড়ে!বিজয় দিবসের ৫ দিন আগেই শত্রুমুক্ত হয় কুষ্টিয়াজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষারের নেতৃত্বে নেীকা প্রতীকে ভোট চেয়ে লিফলেট বিতরনবিএনপি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের খবর ভিত্তিহীন: পাক হাইকমিশনখালেদা জিয়ার মনোনয়ন সংক্রান্ত আপিলের রায় আগামীকাল, ইসির বিরুদ্ধে রুল

অন্যান্য

রাজনীতি

ইতিহাস ও ঐতিহ্য

বিশেষ প্রতিবেদন

কৃষি সমাচার

কোষ্ঠকাঠিন্য ঠেকাতে…

কোষ্ঠকাঠিন্যে সবাইকেই কমবেশি ভুগতে হয়। তবে বয়োজ্যেষ্ঠদের ক্ষেত্রে এর পরিমাণ বেশি। কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে বাঁচার কয়েকটি পথ নিয়ে আজকের টিপস।

১.   কোষ্ঠকাঠিন্য সৃষ্টি করতে পারে—এমন খাদ্য ও পানীয় কম গ্রহণ করতে হবে; যেমন—কফি, চা, চকোলেট, কলা আর সাদা ভাত।

২.   নিয়মিত খাদ্যতালিকায় সবজি রাখতে হবে। প্রতিদিন কমপক্ষে দেড় শ গ্রাম ফল আর আড়াই শ গ্রাম সবজি খেতে হবে। ফল আর সবজি কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৩.   নিয়মিত শরীরচর্চা করতে হবে। এটি অভ্যন্তরীণ পেশিকে উদ্দীপিত রাখে ও কর্মক্ষমতা বাড়ায়।

৪.   প্রচুর পানি পান করতে হবে। কোষ্ঠকাঠিন্য রোধে প্রতিদিন অন্তত আট থেকে দশ গ্লাস পানি পান জরুরি। পানি অন্ত্রের গতিময়তাকে পিচ্ছিল করার পাশাপাশি পরিপাকীয় খাদ্য ভিজিয়ে দেয়। ফলে এর গুণাগুণ সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

৫.   আইসক্রিম, চিপস, পনির, মাংস, পিজাসহ প্রক্রিয়াজাত ও হিমায়িত খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। ৬. স্ট্রেসমুক্ত থাকতে হবে। মস্তিষ্কের সঙ্গে শরীরের এক দারুণ যোগাযোগ রয়েছে। তাই মস্তিষ্কের সমস্যা শরীরে সংক্রমিত হয়।

৭.   একটি সুষম বা ব্যালেন্সড ডায়েট কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে বেশ অনেকটা দূরে সরিয়ে রাখে। খাদ্যতালিকায় প্রচুর তাজা ও শুকনো ফল আর পাতাযুক্ত সবুজ সবজি, রুটি, দুগ্ধজাতীয় খাবার (মাখন বা ঘি), মধু ইত্যাদি রাখতে হবে।

৮.   অধিক পরিমাণে আঁশযুক্ত খাবার খাদ্যতালিকায় রাখতে হবে। এটি পরিপাকতন্ত্রকে সাবলীল রাখে।

৯.   দই ক্যালসিয়ামে ভরপুর একটি খাবার। সেই সঙ্গে এটি মলাশয়কে ঠাণ্ডা রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

ঘুমানোর সময় স্বপ্ন না দেখলে কিন্তু বিপদ!

ঘুমানোর সময় স্বপ্ন দেখেন তো? কী বলছেন! সত্যিই ঘুমানোর সময় স্বপ্ন আসে না? তাহলে তো ভয়ের বিষয়! কারণ সম্প্রতি একদল বিজ্ঞানী যা বলা-কওয়া শুরু করছেন, তাতে রাতারাতি স্বপ্নের মূল্য গেছে বেড়ে। এই বিজ্ঞানীরা গত কয়েক দশক ধরে একটি পরীক্ষা চালাচ্ছিলেন। তাতে একথা প্রমাণিত হয়েছে যে যারা স্বপ্ন দেখেন না, তাদের বয়সকালে নানাবিধ মস্তিষ্কের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা সাধরণ মানুষদের তুলনায় বেশি থাকে। বিশেষত অ্যালঝাইমার বা ডিমেনশিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বেশি।

গবেষণার এ-টু-জেড
ইউ এস স্লিপ স্টাডি নামে খ্যাত এই গবেষণাটিতে অংশ নিয়েছিলেন প্রায় ৩২১ জন। তাদের উপর গত ১২ বছর ধরে গবেষণা চালানোর পর বিজ্ঞানীরা লক্ষ্য করেছিলেন যাদের ‘আর ই এম’ বা র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট কম হচ্ছে তাদের স্বপ্ন দেখার হারও কম। কারণ ঘুমের এই সময়ই আমরা মূলত স্বপ্ন দেখে থাকি। প্রসঙ্গত, যাদের আর ই এম রেট ক্রমাগত কমে, তাদের ব্রেন ফাংশনও কমতে শুরু করে। আর এমনটা হওয়ার কারণে ব্রেন ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা যায় বেড়ে। এমনটা প্রমাণিত হওয়ার পরই বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত হয়েছেন যে স্বপ্ন দেখার সঙ্গে ব্রেন ফাংশন এবং ব্রেন ডিজিজের সরাসরি যোগ রয়েছে।

তাহলে উপায়?
ডিমেনশিয়া রোগ যে ধীরে ধীরে মস্তিষ্কে থাবা বসাতে শুরু করেছে, তা মূলত ঘুমের ধরণ দেখেই বোঝা সম্ভব। এক্ষেত্রে প্রথমেই ঘুম কমতে শুরু করবে। টানা ঘুমানোর অভ্যাস যাবে কমে। সেই সঙ্গে ঘুমানোর সময় স্বপ্নও আর আসবে না। এমন সব লক্ষণ দেখা গেলে যত শীঘ্র সম্ভব একজন নিউরোলজিস্টের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ যত তাড়াতাড়ি চিকিৎসা শুরু করবেন, তত রোগের প্রকোপকে পিছিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। প্রসঙ্গত, অ্যালঝাইমারস বা ডিমেনশিয়া রোগে আক্রান্ত হলে রোগীর স্মৃতিশক্তি কমে যেতে শুরু করে। শুধু তাই নয়, দৈনন্দিন কাজকর্ম করাও আর সম্ভব হয়ে ওঠে না এমন রোগীদের পক্ষে। এক সময় গিয়ে তো নিজেকে এবং পরিবারের বাকি সদস্যদের চেনার ক্ষমতাও চলে যায়। তাই সময় থাকতে সাবধান হওয়াটা জরুরি, না হলে কিন্তু…!

এখানেই শেষ নয়
শুধু স্বপ্ন দেখতে বাঁধা পাওয়া নয়, ঘুমের সঙ্গে ব্রেন ডিজিজের সম্পর্ক যে আরও অনেক গভীর, তা এই গবেষণাটি চলাকালীন সামনে এসেছিল। গবেষকরা খেয়াল করেছিলেন যারা দৈনিক ৯ ঘন্টার বেশি ঘুমোন, তাদেরও ব্রেন টিস্যু সময়ের আগে শুকিয়ে গিয়ে অ্যালঝাইমারস রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। তাই দিনে ৭-৮ ঘন্টার বেশি ঘুমানো চলবে না।

বর্তমান অবস্থা
সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ডিমেনশিয়া রোগের উপর একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। তাতে দেখা গেছে ২০২৫ সাল নাগাদ সারা বিশ্বে বসবাস করা ৬০ বছর বয়সি প্রায় ১.২ বিলিয়ন মানুষের মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশ নতুন করে এই রোগে আক্রান্ত হবেন। শুধু তাই নয়, মোট রোগীর সংখ্যা প্রতি ২০ বছরে প্রায় দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি পাবে। ২০২০ সালে যদি এই সংখ্যাটা ৪২.৩ মিলিয়ন হয়, তাহলে ২০৪০ সালে তা গিয়ে দাঁড়াবে ৮১.১ মিলিয়নে।

প্রসঙ্গত, হু-এর মতে আগামী দিনে যে দুটি দেশে এই রোগের প্রকোপ সবথেকে বেশি মাত্রায় বৃদ্ধি পাবে, সেই দেশ দুটি হল ভারত এবং চীন। সেই সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা এবং আফ্রিকাতেও সংখ্যা বাড়বে ডিমেনশিয়া রোগীর। তাই স্বপ্নের দিকে নজর দেওয়ার সময় হয়তো এসে গেছে বন্ধুরা। কারণ ডিমেনসিয়া রোগের চিকিৎসা এখনও পর্যন্ত আবিষ্কার হয়নি। ওষুধের মাধ্যমে কেবল রোগটিকে কিছুটা প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়েছে। তাই আগে থেকে সাবধান হবেন তো কষ্ট পাবেন কম।

কঠিন সব কাজ সহজেই শিখুন ২০ সাইট থেকে

নিত্যদিনের কাজ কিংবা স্কুলের কঠিন কোনো পড়া, অনলাইনে সবকিছুই এখন সহজে পাওয়া যায়। এ লেখায় তুলে ধরা হলো অনলাইনে কার্যকর ২১টি স্থান, যেখান থেকে সহজেই শিখে নেওয়া যাবে যাবতীয় কঠিন সমস্যার সহজ সমাধান। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে আইএনসি।
১. লাইফহ্যাকার
লাইফ হ্যাকারে জীবনের যাবতীয় কঠিন কাজকে দ্রুত, ভালো ও সহজভাবে করার উপায় পাওয়া যাবে।
ওয়েবসাইট : http://lifehacker.com/
২. লাইব্রেরি অব কংগ্রেস
যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় লাইব্রেরি এখন অনলাইনে রয়েছে। পড়ুয়াদের জন্য এ লাইব্রেরির ওয়েবসাইটে রয়েছে দারুণ কালেকশন।
ওয়েবসাইট : https://www.loc.gov/
৩. বাউন্ডলেস
যারা পাঠ্যপুস্তকের বইগুলো অর্থাভাবে কিনতে পারছেন না, তাদের জন্য রয়েছে এ ওয়েবসাইটটি। এতে পাওয়া যাবে মূল্যবান বহু পাঠ্যপুস্তক।
ওয়েবসাইট : https://www.boundless.com/
৪. আইএনসি.এডু
যারা অনলাইনে নানা ধরনের জীবনমুখী শিক্ষা নিতে চান তাদের জন্য একটি দারুণ সাইট আইএনসি।
ওয়েবসাইট : http://edu.inc.com/
৫. বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়
বর্তমানে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে অসংখ্য বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে কোর্স করাচ্ছে। এসব শিক্ষার মধ্যে রয়েছে সাধারণ কোর্স কিংবা অতি প্রয়োজনীয় কোনো কোর্স, যা আপনার পেশাগত জীবনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।
৬. গুগল ওয়ার্ল্ড ওয়ান্ডার্স
প্রাচীন ও আধুনিক বিশ্বের বহু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে গুগল ওয়ার্ল্ড ওয়ান্ডার্স-এ। এতে গুগলের স্টিট ভিউ ও ম্যাপিং টেকনোলজির সহায়তা নেওয়া হয়েছে।
ওয়েবসাইট : https://www.google.com/culturalinstitute/project/world-wonders
৭. টেড টকস
টেড থেকে দারুণ সব শিক্ষা গ্রহণ করা যায়। এটি উদ্যোক্তা, লিডারশিপ প্রশিক্ষণার্থী ও পেশাজীবীদের জন্য বহু বিষয় শেখার সুযোগ করে দিয়েছে।
ওয়েবসাইট : http://ed.ted.com/
৮. রেডিট লেকচার্স (ভিডিও)
এটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে টপ প্রফেশনালদের ক্রাউডসোর্সড কালেকশন। এখানে ব্যবহারকারীরা প্রতিনিয়ত নানা লেকচারের ওপর তাদের মতামত জানাচ্ছেন। আর তাদের মতামত ও ভোটের ভিত্তিতে লেকচারগুলোর অবস্থান পরিবর্তিত হয়।
ওয়েবসাইট : https://www.reddit.com/r/lectures/
৯. ইউরেডিট
রেডিটের মালিকানাধীন শিক্ষামূলক ওয়েবসাইট। এখানে আর্টস, কম্পিউটার সায়েন্স, ভাষা, অংক ও পরিসংখ্যান শিক্ষা দেওয়া হয়।
ওয়েবসাইট : http://ureddit.com/
১০. ইন্টারনেট স্যাক্রেড টেক্সট আর্কাইভ
বিনামূল্যের বই ও অন্যান্য সামগ্রীর সবচেয়ে বড় আর্কাইভ এটি। এতে পাবেন নানা বিষয়ের অসংখ্য বই।
ওয়েবসাইট : http://www.sacred-texts.com/index.htm
১১. মিটআপ
আপনার এলাকার কোনো সফল ব্যক্তির কাছ থেকে কিছু শিখতে চান? জানতে চান এলাকার নানা গুরুত্বপূর্ণ অভিজ্ঞতা? এজন্য মিটআপ রয়েছে আপনার পাশে।
ওয়েবসাইট : http://www.meetup.com/
১২. ট্রিভিয়াম এডুকেশন
কঠিন সব বিষয় সহজ করে তুলে ধরা হয়েছে এ সাইটে।
ওয়েবসাইট : http://www.triviumeducation.com/trivium/
১৩. হাবস্পট একাডেমি
অনলাইন মার্কেটিং সফটওয়্যার জায়ান্ট হাবস্পট এতে তুলে ধরেছে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের নানা বিষয়। এজন্য রয়েছে বেশ কয়েকটি কোর্সও।
ওয়েবসাইট : http://academy.hubspot.com/
১৪. ইউনিভার্সিটি অব দি পিপল
বিশ্বের প্রথম অলাভজনক, অবৈতনিক মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে দাবি করা হয় ইউনিভার্সিটি অব দি পিপলকে। এতে রয়েছে বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, কম্পিউটার সায়েন্স ও হেলথ স্টাডিস।
ওয়েবসাইট : http://www.uopeople.edu/
১৫. পিবিএস ভিডিও
নানা বিষয়ে শিক্ষামূলক ভিডিও পাবেন এ সাইটে।
ওয়েবসাইট : http://www.pbs.org/video/
১৬. প্রজেক্ট গুটেনবার্গ
প্রজেক্ট গুটেনবার্গ লাইব্রেরির ৫০ হাজার ডকুমেন্ট পাবেন এতে।
ওয়েবসাইট : http://www.gutenberg.org/wiki/Main_Page
১৭. পকেট
আর্টিকেল, ভিডিও ও অন্যান্য আকর্ষণীয় বিষয় পরবর্তীতে দেখার জন্য এখানে জমিয়ে রাখতে পারবেন। এটি আপনার ব্রাউজারে থাকবে। পরবর্তীতে ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই তা দেখতে পারবেন।
১৮. এমআইটি ওপেন কোর্সওয়্যার
এ বিশ্ববিদ্যালয়টি অনলাইনে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে বিভিন্ন কোর্স করতে দিচ্ছে। এসব কোর্সের মধ্যে রয়েছে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ও এ ধরনের বিভিন্ন কোর্স।
ওয়েবসাইট : http://ocw.mit.edu/index.htm
১৯. ফিউচারলার্ন
৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনামূল্যের অনলাইন কোর্সের সমাহার রয়েছে এ সাইটে। এটি যুক্তরাজ্যের একটি সাইট, যার সাড়ে তিন মিলিয়নেরও বেশি গ্রাহক রয়েছে।
ওয়েবসাইট : https://www.futurelearn.com/
২০. রেসকিউ টাইম
আপনি কোথায় এবং কিভাবে সময় কাটান এবং তা আরও ভালোভাবে করার উপায় সম্পর্কে জানা যাবে এ সাইটে।
ওয়েবসাইট : https://www.rescuetime.com/

ঢাকার কাছা-কাছি মোট ২১ টি রিসোর্টের তথ্য শেয়ার করে সংগ্রহে রাখুন

এই রিপোর্টে ঢাকার কাছা-কাছি মোট ২১ টি রিসোর্টের তথ্য দেয়া হল, কখনো ছুটি কাটাতে চাইলে কাজে লাগতে পারে ।

১) #রাজেন্দ্রইকোরিসোর্ট

গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের বিপরীত দিকের বড় সড়ক থেকে ডানের গলিপথ ধরে সবুজের অরণ্যে হঠাটি হারিয়ে জাবেন আপনি। ভবানীপুর বাজার পেরিয়ে চিকন রাস্তা ধরে আরও কিছুটা দূর…। পথের দুধারে ঘন শালবন। যতদূর চোখ যায়, শুধুই গাছ আর গাছ। পুকুরপাড়ের গাছটিতে মাছরাঙা পাখি শিকারের আশায় বসে। পুকুরের তীর ঘেঁষে বকের হাঁটাহাঁটি। হরেক রকম পাখি দেখে মনে হতে পারে, হয়তো কোনো গহীন জঙ্গলে এসে পড়েছেন। সত্যিই গহীন অরণ্য। রাস্তার দুধারে দূরের শালবন ছাড়াও খেজুরগাছ, বটগাছ। রাস্তার পাশে আদিবাসীদের কিছু বাড়িঘর।
ফোনঃ ৫৮০৭০৮৪০,০১৯১৯৩১৮০০৯

২)#ভাওয়ালজাতীয়উদ্যান গাজীপুর

সরকারি পিকনিক স্পটগুলোর মধ্যে অন্যতম গাজীপুরের এ ভাওয়াল উদ্যান। চত্ত্বর গাজীপুর সদর ও শ্রীপুর থানা জুড়ে অবস্থিত ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান। খেলাধুলার জন্য রয়েছে বড় একটি মাঠ। তাছাড়া রয়েছে এখানে একটি চিড়িয়াখানা। পৃথিবীর অন্যান্য জাতীয় উদ্যানের আদলে ৬,৪৭৭ হেক্টর জমিতে ১৯৭৩ সালে এ উদ্যান সরকারিভাবে গড়ে তোলা হয়। ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের মূল উদ্ভিদ হলো শাল। এছাড়াও নানারকম গাছ-গাছালিতে পরিপূর্ণ এ উদ্যান। জাতীয় উদ্যানের ভেতরে বেশকয়েকটি বনভোজন কেন্দ্র, ১৩টি কটেজ ও ৬টি রেস্ট হাউস রয়েছে। উদ্যানে প্রবেশমূল্য জনপ্রতি ৬ টাকা। এছাড়া পিকনিক স্পট ব্যবহার করতে হলে, বন বিভাগের মহাখালী কার্যালয় (০২-৮৮১৪৭০০) থেকে আগাম বুকিং দিয়ে আসতে হবে।

সফিপুর আনসার একাডেমি গাজীপুর
জেলার কালিয়াকৈর উপজেলায় অবস্থিত আনসার-ভিডিপি একাডেমির বিশাল চত্বর বেড়ানোর জন্য একটি উপযুক্ত যায়গা। অনুমতি সাপেক্ষে বনভোজন করারও ব্যবস্থা আছে এখানে । ফোনঃ০২-৭২১৪৯৫১-৯

৩) #পদ্মা_রিসোর্ট

ছুটির দিন কিংবা ঈদের বন্ধ ছাড়া বুকিং না করে গেলেও সাধারণত কটেজ খালি পাওয়া যায়। বুকিংয়ের জন্য পদ্মা রিসোর্টের নিজস্ব ওয়েবসাইটে সব তথ্য পাওয়া যাবে। রিসোর্ট যদি শুধু দিনের বেলা ভাড়া করতে চান, তাহলে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত থাকতে পারবেন এবং সেক্ষেত্রে ভাড়া লাগবে ২৩০০ টাকা। আর যদি দিনসহ রাতও কাটাতে চান, তাহলে ভাড়া লাগবে ৩৪০০ টাকা। মোট ১৬টি কটেজ। এই কটেজগুলোই মূল আকর্ষণের জায়গা। নদীর পাড় ঘেঁষে গড়ে ওঠা কটেজগুলোতে বেশ আরামদায়ক এবং নিরিবিলি সময় কাটাতে পারবেন।

কটেজগুলোর নামকরণও করা হয়েছে বেশ সুন্দরভাবে। ১২টি কটেজের নাম রাখা হয়েছে বাংলা বছরের ১২টি মাসের নামানুসারে। আর বাকি চারটির নাম নেওয়া হয়েছে চারটি ঋতু থেকে। যদি ভরা বর্ষায় আসেন তাহলে কটেজগুলোর সামনে পানি টলটল করবে। এর ওপর কাঠের তৈরি রাস্তা দিয়ে হাঁটাচলা করতে হয়। মনে হয় কটেজগুলো যেন ভেসে আছে পানিতে। ফোনঃ০১৭১২১৭০৩৩০

৪) #নক্ষত্রবাড়ী

গাজীপুরে অবস্থিত বেসরকারি রিসোর্টগুলোর মধ্যে সৌন্দর্যমণ্ডিত ‘নক্ষত্রবাড়ী’। নক্ষত্রবাড়ী প্রকৃতিপ্রেমী ও ভ্রমণপিপাসুদের কাছেও অতি জনপ্রিয় নাম। প্রকৃতিপ্রেমীদের সব সুযোগ-সুবিধা সংবলিত ঢাকার খুব কাছে একটি রিসোর্ট বানানোর কথা চিন্তা করে অভিনেতা তৌকীর আহমেদ ও বিপাশা হায়াত দম্পতি ১৪ বিঘা জমির ওপর ‘নক্ষত্রবাড়ী’ নির্মাণ করেন। ২০১১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয় নক্ষত্রবাড়ীর ।
ফোনঃ০১১৯২১৫০৫৬৩,০১৯১৯৩১৮০০৯

৫) #নুহাশপলস্নী

জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের বাগানবাড়ি ও শুটিং স্পট। প্রায় ৯০ বিঘা জায়গা নিয়ে এই নন্দন কাননে আছে একটি ছোট আকারের চিড়িয়াখানা, শান বাঁধানো ঘাটসহ একটি বিশাল পুকুর, দৃষ্টিনন্দন কটেজ, ট্রি হাউস বা গাছবাড়িসহ আরো অনেক আয়োজন। নুহাশ পলস্নীর ভেতরের বিশেষ আকর্ষণ হলো_এর ঔষধি গাছের বাগান। এত সমৃদ্ধ ঔষধি বাগান এদেশে বিরল। সবমিলিয়ে নুহাশপলস্নী একটি ছবির মতো সাজানো-গোছানো এক প্রান্তর, যেখানে গেলে ভালো লাগবে সবার। ডিসেম্বর, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি এই তিনমাস বনভোজনের অনুমতি মেলে নুহাশপলস্নীতে। যোগাযোগ :০১৭১২০৬০৯৭১

৬) #ছুটি

ছুটি রিসোর্টে রয়েছে নৌভ্রমণের ব্যবস্থা, বিরল প্রজাতির সংরক্ষিত বৃক্ষের বনে রয়েছে টানানো তাঁবু। ছনের ঘর, রেগুলার কটেজ, বার্ড হাউস, মাছ ধরার ব্যবস্থা, হার্বাল গার্ডেন, বিষমুক্ত ফসল, দেশীয় ফল, সবজি, ফুলের বাগান, বিশাল দুটি খেলার মাঠ, আধুনিক রেস্টুরেন্ট, দুটি পিকনিক স্পট, গ্রামীণ পিঠা ঘর, বাচ্চাদের জন্য কিডস জোনসহ সারা দিন পাখির কলরব, সন্ধ্যায় শিয়ালের হাঁক, বিরল প্রজাতির বাঁদুড়, জোনাকি পোকার মিছিল ও আতশবাজি, ঝিঁঝিঁ পোকার হৈচৈ। আর ভরা পূর্ণিমা হলে তো কথাই নেই।

৭)#রাঙ্গামাটিওয়াটারফ্রন্ট_রিসোর্ট গাজীপুর

গাজীপুরের চন্দ্রায় অবস্থিত আরেকটি রিসোর্ট ও বনভোজন কেন্দ্র রাঙ্গামাটি। এখানে আছে বনভোজন কেন্দ্র, লেকে মাছ ধরা ও বেড়ানোর ব্যবস্থা এবং কটেজে অবকাশ যাপনের ব্যবস্থা। ফোনঃ০১৮১১৪১৪০৭৪,০১৯১৯৩১৮০০৯

৮) #আফরিনপার্করিসোর্ট_গাজীপুর

জয়দেবপুর চৌরাস্তা থেকে প্রায় দশ কিলোমিটার দূরে গাজীপুর-ময়মনসিংহ সড়কের পাশেই আফরিন পার্ক রিসোর্ট। নানান গাছ-গাছালিতে ঘেরা এ পার্কে আছে বিশাল শান বাঁধানো পুকুর, লেকে নৌকায় বেড়ানোর ব্যবস্থাসহ অবকাশ যাপনের জন্য রিসোর্ট ফোনঃ০১৮১৯২৫৩৩৩৯

৯) #উৎসবপিকনিকস্পট গাজীপুর

ঢাকা থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কের হোতাপাড়ার কাছেই এ বনভোজন কেন্দ্রটি। উৎসব পিকনিক স্পটে আছে খোলা চত্বর, কয়েকটি কটেজ ও ট্রি হাউজ। ঢাকার ফুলবাড়িয়া থেকে শ্রাবণ পরিবহনে এসে নামতে হবে হোতাপাড়া বাসস্ট্যান্ডে। ভাড়া ৩৫ টাকা। সেখান থেকে রিকশায় দশ টাকা ভাড়া উৎসব পিকনিক স্পট পর্যন্ত। যোগাযোগ :০১৭১৩০৪৪৫৯১, ৮৬২৬৩৭৬

১০) পুষ্পদাম পিকনিক স্পট গাজীপুর

ঢাকা থেকে ৫৫ কিলোমিটার দূরে গাজীপুর জেলার বাঘের বাজারে পুষ্পদাম অবস্থিত। এখানে বিশাল পরিসরে রয়েছে দেশি-বিদেশি বাহারি গাছের সমাহার। প্রবেশপথেই রয়েছে বিশাল দেবদারু গাছের সারি। এ পথ পেরিয়ে একটু ভেতরে ঢুকলেই রয়েছে ফুলে ফুলে ঘেরা কয়েকটি কটেজ। এখানে রয়েছে বিশাল খেলার মাঠ, কৃত্রিম লেক, ঝরনা ও সুইমিংপুল। পর্যাপ্ত রান্নাঘর, টয়লেট ছাড়াও এখানে আছে একই সাথে এক হাজার লোকের খাবারের জায়গা। যোগাযোগ :০১৮১৯২১৬১৫৭

১১) #হ্যাপিডেইনন : গাজীপুর

ভাওয়াল জাতীয় উদ্যানের ঠিক বিপরীত দিকে রয়েছে বেসরকারি এ পিকনিক স্পট। উন্নতমানের হলরুম, আবাসিক রুমসহ দেশীয়, থাই, চায়নিজ খাদ্যের ব্যবস্থা রয়েছে পিকনিকের জন্য। পিকনিকের আয়োজন করে গাজীপুরের এই সবুজ বনে হারিয়ে যেতে কে না চায়। ফোনঃ০১৯৩৯-০৪৭৫৮৬-৮

১২) #অঙ্গনা: গাজীপুর

গাজীপুরের সুর্য্যনারায়নপুর, কাপাসিয়া থানায় অবস্থিত অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি হওয়ায় এই রিসোর্টের নামকরণ করা হয়েছে ‘অঙ্গনা’। গ্রামীণ সৌন্দর্যের বেসরকারি রিসোর্টস অঙ্গনার মালিক উপমহাদেশের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লার ভাই সৈয়দ আলী মুরাদ ২০০৪ সালে ১৮ বিঘা জমির ওপর এটি নির্মাণ করেন। যার অবস্থান গাজীপুরের কাপাসিয়ার সূর্যনারায়ণপুর গ্রামে। নগর জীবনে একাধারে চলতে চলতে ক্লান্তি এসে যায় মনে। আর এই ক্লান্তি দূর করতে রাজধানীর অদূরে কাপাসিয়ার সূর্যনারায়ণপুর গ্রামে গড়ে তোলা হয়েছে বেসরকারি এই রিসোর্ট ‘অঙ্গনা’ বাকী জানতে ওয়েবসাইট ভিসিট করুন

১৩) #ফ্যান্টাসি_কিংডম আশুলিয়া

আশুলিয়ার জামগড়ায় গড়ে উঠেছে বিশ্বের আধুনিক সব রাইড নিয়ে বিনোদনকেন্দ্র ফ্যান্টাসি কিংডম। পাশেই হেরিটেজ পার্কে আছে ঐতিহ্যের পরিপূর্ণ ভাণ্ডার। বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলোর অনেকগুলোই চোখে পড়বে এখানে। এগুলো মূল স্থাপনার অবিকল আদলেই তৈরি করা হয়েছে হেরিটেজ পার্কে। এ জায়গা দুটিতে বনভোজন করার জন্য রয়েছে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা।
ফোনঃ ৭৭০১৯৪৪-৪৯।

১৪) #রিসোর্ট_আটলান্টিস , আশুলিয়া

ওয়াটার কিংডমের ভিতরে অবিস্থিত রিসোর্ট আটলান্টিস ,
মোহাম্মদী গার্ডেন
মহিশাষী, ধামরাই এ অবস্থিত
ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে ধামরাইয়ের মহিষাশী। এখানেই এই গার্ডেন অবস্থিত। নিজে না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না এটা একটা স্বপ্নপুরী নাকি স্বর্গভূমি। বিনোদনের জন্য গার্ডেনের ভিতরে রয়েছে পুকুর। সেই পুকুরে ভেসে বেড়াচ্ছে নৌকা, কাঠের রাজহাঁস, মাটির শাপলা। ফোনঃ ০১৭১৭৩৭৪৯০৪, ০১১৯০২৩৭০৬২

১৫) #হাসনাহেনা_গাজীপুর

ঢাকার পাশেই গাজীপুর জেলার পুবাইল কলেজগেটে অবস্থিত তেমনি একটি বেসরকারি বিনোদন পর্যটন কেন্দ্র “হাসনাহেনা”। টঙ্গী থেকে এর দূরত্ব ৮ কিলোমিটার। পরিবারের সবাইকে নিয়ে কিংবা অফিস বা সংগঠনের দিনব্যাপী পিকনিক বা বনভোজনে এখানে আসা যেতে পারে অনায়াসে। যোগাযোগ :হাসনাহেনা, হাড়িবাড়ীর টেক, পুবাইল কলেজগেট, পুবাইল গাজীপুর। ফোনঃ০১১৯৯৮৭৫৫৭৬, ০১৯১১৪৯৫১২৩, ০১৭১৪০০৩১০৩, ০১৭৩৬৬৭২৪০৮।

১৬) #সোহাগপল্লী
১১ একর উঁচু-নিচু জমিতে সবুজে ঘেরা এই রিসোর্টের অন্যতম আকর্ষণ হলো জলাশয়ের ওপর নির্মিত অপরূপ সৌন্দর্যমণ্ডিত ঝুলন্ত সাঁকো আর এর পিলার ও বেলকনিতে খোঁদাই করা বিভিন্ন কারুকাজ- যা আগত দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে। বিশাল এক জলাশয়ের মাঝখানে ঝুলন্ত সাঁকো থাকায় দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করে বেশি। জলাশয়ের পূর্ব পাশে রয়েছে একটি দ্বিতল রেস্টুরেন্ট। রেস্টুরেন্টটির নাম রাখা হয়েছে মেজবান। শুধু তাই নয়, কৃত্রিমভাবে একটি লেক নির্মাণ করা হয়েছে। যাতে বর্ষা বা শুষ্ক সবসময়ই পানি থাকে। আর এই লেকের পানিতে বিভিন্ন জাতের মাছের বিচরণ দেখা যায়। ফোনঃ ০১৭১২০৪৯৯০৩-০৪,০১৬১২০৪৯৯০

১৭) #আনন্দ_রিসোর্ট

গাজীপুরের কালিয়াকৈরের পরিচিত রিসোর্ট হলো ‘আনন্দ’। আনন্দ রিসোর্টটি নামের সঙ্গে বেশ আবেগের মিল রেখেছে। আনন্দদানের সব উপকরণই এখানে জোগাড় করার চেষ্টা করা হয়েছে। শুধু চোখে দেখে নয়, বরং বিভিন্ন খেলার রাইডে চড়ে আনন্দের দেখা মিলবে এখানে। বিলঘেঁষা এই আনন্দ রিসোর্টের বৈশিষ্ট্য হলো, এখানে সরাসরি বিল থেকে মাছ শিকারের ব্যবস্থা রয়েছে। মাছ শিকারিদের জন্য এই সুযোগ অবশ্যই বাড়তি পাওনা।ছিপ ফেলে মাছের জন্য অপেক্ষায় কাটবে সময়। এ ছাড়া রয়েছে ছোটদের খেলার নানা উপকরণ। একটি সুইমিং রয়েছে। ৪২ বিঘা উঁচু-নিচু টিলা ভূমিতে গড়ে তোলা হয় আনন্দ রিসোর্ট। কালিয়াকৈরের সিনাবহের তালতলি এলাকায় এর অবস্থান। বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ গাছ ও ৬টি কটেজ রয়েছে এখানে।

ভাড়া : কটেজগুলোর প্রতিকক্ষ ২৪ ঘণ্টার ভাড়া ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা। পিকনিক বা বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য ভাড়া পড়বে ৭০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা।
যেভাবে যাবেন : নিজস্ব পরিবহন বা যাত্রীবাহী বাসে করে গাজীপুরের চৌরাস্তা হয়ে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে উঠতে হবে। এই মহাসড়ক ধরে সফিপুর বাজার যেতে হবে। সেখান থেকে ২ কিলোমিটার উত্তরে সিনাবহ বাজারের পাশে এই রিসোর্টের অবস্থান।
ফোনঃ০২-৯১২৫৭৭৮,০১৯১৯৩১৮০০৯, ০১৬৭০২৭৫৮৬৪

১৮) #জলজঙ্গলেরকাব্য, পূবাইল

ঢাকার অদূরে পূবাইলে ৯০ বিঘা জমির উপর গড়ে উঠেছে একটুকরো গ্রাম।বাঁশ আর পাটখড়ির বেড়া ,উপরে ছনের ছাউনি, সামনে দিগন্ত বিস্তৃত জলের নাচন। এটা তেমন আধুনিক জায়গা নয় কিন্তু পরিচ্ছন্ন এবং গ্রাম-বাংলার একটা ছোয়া আছে এর আদলে। অবশ্যই ভাল লাগবে ঘুরে আসুন। ফোনঃ০১৯১৯৭৮২২৪৫, ০১৭১৯৫২৩০১৬

১৯) #আরশিনগরহলিডেরিসোর্ট

ঢাকা থেকে মাত্র ত্রিশ কিলোমিটার দূরে গাজীপুরের ভাওয়ালে অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত হলিডে রিসোর্ট ও পিকনিক স্পট। ভাওয়ালের গ্রাম ও শালবনের মাঝে অসাধারণ প্রাকৃতিক আবহাওয়ায় আধুনিক সব সুযোগ সুবিধা নিয়ে সাজানো আরশিনগর।
অফিষ: ২১/১ ইস্কাটন গার্ডেন , ফ্্যাট ৪/এ , রমনা ঢাকা, ফোনঃ৯৩৪৪৮৮৯
রিসোর্ট অফিস
পাজৃলিয়া, জয়দেবপুর, গাজীপুর
ফোন :০১৭৩২৩৫৪০০৭,০১৯২৩১১৭০৫৬

২০) #ড্রিম_স্কয়ার

গাজীপুরের মাওনার অজহিরচালা গ্রামে ‘ড্রিম স্কয়ার’ নামে বিশালাকৃতির বেসরকারি রিসোর্ট রয়েছে। ১২০ বিঘা জমির ওপর নির্মিত বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে ড্রিম স্কয়ার রিসোর্ট। এর প্রধান আকর্ষণ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে সবুজের সমারোহ। ড্রিম স্কয়ারের আকর্ষণীয় স্থানের মধ্যে রয়েছে তেলের ঘানি, ডেইরি ফার্ম, মৎস্য হ্যাচারি, কম্পোস্ট সার প্লান্ট, বায়োগ্যাস প্লান্ট। ড্রিম স্কয়ারের আলাদা বৈশিষ্ট্য হলো রেস্টুরেন্টের খাবারের সবজি এর ভেতরেই চাষাবাদকৃত, যা সম্পূর্ণ সার ও কীটনাশকমুক্ত।

রয়েছে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠা বিশালাকৃতির কয়েকটি লেক। রয়েছে ১৬টি ছোট-বড় পুকুর। ভেতরে সবুজে বেষ্টিত বাগানের মাঝখানে রয়েছে জাতীয় মাছ ইলিশের দুটি প্রতিকৃতি। আর বিভিন্ন গাছে রয়েছে বানরের প্রতিকৃতি।

এখানে নানান প্রজাতির পাখির অভয়াশ্রম রয়েছে। ড্রিম স্কয়ারে প্রতি বছর শীতের সময় অতিথি পাখির মেলা বসে। আছে একটি রেস্টুরেন্ট, রয়েছে ওয়াই-ফাই সুবিধা। এখানে সবচেয়ে বেশি বিদেশি পর্যটকদের আনাগোনা। ফোনঃ৮৮০-০২-৯৩৩৪১৪৯, ৯৩৪২২০৩, ০১৭৫৫৬৩০৩৩১১

২১) #গ্রীনটেক_রিসোর্ট

২০১০ সালে গাজীপুর জেলার ভবানীপুরে প্রায় ৬ একর জায়গা নিয়ে অবস্থিত গ্রীনটেক রিসোর্ট। এখানে রয়েছে ৭৩টি রুম, একটি অডিটেরিয়াম, দুটি কনফরেন্স রুম, একটি সুমিং পুল, দুটি ডায়নিং হল, আর দুটি পুকুর। সম্পূর্ণ শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত এখানে রয়েছে ইনডোর, আউটডোর গেমের সকল সুবিধা। পুরো রিসোর্টটি রয়েছে ওয়াই ফাই সংযোগ। এখানে সর্বনিম্ন তিন হাজার থেকে সর্বচ্চো দশ হাজার টাকা পর্যন্ত রুম ভাড়া পাওয়া যায়।
যোগাযোগ:হোটেল রেডিয়াল প্যালেস,রোড-৮, ব্লক-সি,বনানী, ঢাকা।ফোন: ০১৭১৫১০৫৭৭০,০১৯১৯৩১৮০০৯

আজ তারা বোবা বধির ও অন্ধ হয়ে গেছেন: এরদোগান

তুরস্কের প্রসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও স্বাধীনতা নিয়ে তুরস্ককে কেউ জ্ঞান দিতে পারবে না। গাজী পার্ক বিক্ষোভের সময় মানবাধিকারের ধ্বজাধারীরা আজ প্যারিসে বলপ্রয়োগের ক্ষেত্রে বোবা-বধির ও অন্ধ হয়ে গেছেন।

বিশ্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণা গৃহীত হওয়ার ৭০তম বার্ষিকী উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে সোমবার তিনি বলেন, ২০১৬ সালে ব্যর্থ অভ্যুত্থানে পরাজিতদের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি এবং লাখ লাখ শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার প্রশ্নে আমরা উত্তীর্ণ হয়েছি।

মানবতার সভ্যতা নামে ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, তুরস্ক এখন এমন একটি জায়গায়, যেখানে মানবাধিকার ও গণতন্ত্র নিয়ে কেউ খুঁত ধরতে পারবে না।

মুসলিম বিশ্বে জনপ্রিয় তুরস্কের এ প্রেসিডেন্ট বলেন, যারা গাজী পার্কের বিক্ষোভের সময় মানবাধিকারের প্রতি সমর্থনের ভান ধরেছিলেন, প্যারিসের বিক্ষোভে বলপ্রয়োগ নিয়ে তারা নিশ্চুপ রয়েছেন।

এরদোগান বলেন, গাজী পার্ক বিক্ষোভের সময় আপনি সারা বিশ্বকে উত্তপ্ত করে তুলেছেন। কেন? এটি তুরস্কে ঘটেছে এ জন্য? তখন যেভাবে সম্প্রচার করা হয়েছিল, এখন সেভাবে হচ্ছে না কেন।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনের পদত্যাগ দাবিতে রাজধানী প্যারিসসহ ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভে ব্যাপক ধরপাকড় চালানো হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে মূল লড়াই হবে নৌকা-ধানের শীষে

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রতীক বরাদ্দের পরপরই ভোট যুদ্ধে নেমে পড়েছেন প্রার্থীরা। এ আসনে মোট ৩জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউর রহমান (নৌকা), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম (ধানের শীষ) ও ইসলামী আন্দোলনের ইব্রাহিম খলিল (হাতপাখা)।

ইতিমধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের নির্বাচনী এলাকা (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট) উপজেলার সর্বত্র মূল প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা ও ধানের শীষের পোস্টারে ছেয়ে গেছে। চলছে বিভিন্ন চটুল মাইকিং। এছাড়া প্রার্থীরা তাদের কর্মী সমর্থকদের নিয়ে জনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে।

আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউর রহমান ইউনিয়ন পর্যায়ে জনসভার অংশ হিসেবে বুধবার নাচোল উপজেলার নেজামপুর ইউনিয়নের হাটবাকইল উচ্চ বিদ্যালয় সাঠে নির্বাচনী জনসভার মাধ্যমে তার নির্বাচনী প্রচারণা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছেন। এছাড়া বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম গত মঙ্গলবার নাচোল উপজেলার ভোলার মোড়ে পথসভার মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন।

আওয়ামীলীগ প্রার্থী জিয়াউর রহমানের পক্ষে অন্যান্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা একযোগে নেমে পড়ায় নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপণা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে গোমস্তাপুর উপজেলায় বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস, নাচোলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের ও ভোলাহাটে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম চুনুসহ অন্যান্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সর্বশেষ ভূমিকা নৌকার জয়-পরাজয় নির্ধারণ করবে বলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

অপরদিকে বিএনপি প্রার্থী আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম এখনও দল গোছাতে না পারায় বেশ বেকায়দায় রয়েছেন। তবে তিনি অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র একাংশের সভাপতি বাইরুল ইসলামও তার অনুসারীদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন।অচিরেই সব ভেদাভেদ ভূলে ধানের শীষের পক্ষে একসাথে কাজ করবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এদিকে তৃতীয় প্রার্থী ইসলামী আন্দোলনের ইব্রাহিম খলিল এ আসনের প্রানকেন্দ্র গোমস্তাপুর উপজেলা সদর রহনপুরে মঙ্গলবার গণসংযোগ করেছেন। প্রধান দু’দলের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে মূলতঃ এ আসনে নৌকা ও ধানের শীষের মূল লড়াই হবে বলে ভোটাররা মনে করছেন।

Advertisment ad adsense adlogger